advertisement
আপনি পড়ছেন

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে একটি রেলপথ নির্মাণ সাইটে কয়েক সপ্তাহের ভারী বর্ষণে সৃষ্ট ভূমিধসে অন্তত ১৯ জন নিহত ও প্রায় অর্ধশত নিখোঁজ হয়েছে। শুক্রবার মণিপুর রাজ্যের রাজধানী ইম্ফলের নিকটবর্তী শহর নোনিতে এই ভূমিধসের ঘটনা ঘটে। ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়া লোকদের উদ্ধার করতে পুলিশ বুলডোজার নিয়ে কাজ করছে। তাদের সাথে যোগ দিয়েছে সাধারণ মানুষ। কিন্তু ভারী যন্ত্রপাতি দিয়ে উদ্ধারকাজ ব্যাহত হচ্ছে।

landslides died 19 in india 50 missingভারতে ভূমি ধসে ১৯ জনের মৃত্যু, নিখোঁজ অর্ধশত

জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এইচ গুয়েট বলেন, অবিরাম বৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে। একটি টিলা ধসে রেলপথ প্রকল্প এলাকা ঢেকে গেছে। আহত ১৮ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এখনও প্রায় ৫০ জন নিখোঁজ রয়েছে। এলাকাবাসীকে নিরাপদ স্থানে সরে যেতে বলা হয়েছে।

সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল আরপি কলিতা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেন, ওই এলাকায় নির্মিত রেলস্টেশন, স্টাফদের আবাসিক কোয়ার্টার এবং অন্যান্য অবকাঠামোর ধ্বংসাবশেষ থেকে ১৩ সেনা এবং পাঁচজন বেসামরিক নাগরিককে উদ্ধার করা হয়েছে। যাদের জীবিত পাওয়া গেছে তাদের সাহায্য করার জন্য সেনাবাহিনী ঘটনাস্থলে একটি মেডিকেল পোস্ট স্থাপন করেছে। 

মৃতদের মধ্যে দশজন আঞ্চলিক সেনাবাহিনীর সদস্য। এই অঞ্চলে জাতিগত ও উপজাতি গোষ্ঠীগুলোর জন্য পৃথক আবাসভূমির দাবিতে এক দশক ধরে বিদ্রোহ চলে আসছে। বিদ্রোহ দমনে সেনা কর্মীরা সেখানে রেলওয়ে কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা প্রদান করছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সাথে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করছেন। কেন্দ্রীয় সরকার থেকে সম্ভাব্য সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

গত তিন সপ্তাহ ধরে অবিরাম বৃষ্টিতে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল বিপর্যস্ত। এ অঞ্চলের আট রাজ্যে সাড়ে কোটি লোকের বাস।

মূল কারণ জলবায়ু পরিবর্তন

ভারতের আসাম, মণিপুর, ত্রিপুরা এবং সিকিমসহ কয়েকটি রাজ্যে ভারী বর্ষণ এবং ভূমিধসে বহুলোক হতাহত হয়েছে। লক্ষাধিক মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে অনিয়মিত ও অগ্রিম বৃষ্টিপাত হচ্ছে, যা নজিরবিহীন বন্যার সূত্রপাত করেছে।

দক্ষিণ এশিয়ায় মৌসুমী বৃষ্টি সাধারণত জুন থেকে শুরু হয়। তবে এই বছর মার্চের প্রথম দিকে উত্তর-পূর্ব ভারত ও বাংলাদেশে প্রবল বৃষ্টিপাত হয়েছে।