আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 11 মিনিট আগে

বিগত কয়েক বছর ধরে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা প্রশ্নফাঁসের দায়ে বারবার প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠা এই অপরাধ গোটা জাতির জন্য যেমন লজ্জাজনক তেমনই হতাশার। আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ বিভিন্ন মহল এই বিষয়ে সোচ্চার হয়েও কোন গতি করতে পারছে না। কিন্তু এবার এ ধরণের সব সমস্যার সমাধান নিয়ে এলো বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজির (বিইউবিটি) শিক্ষার্থী মো. আল-আমিন।

 question leak in dhaka

আল-আমিন ‘কোয়েশ্চেন সেন্টার’ নামের এমন একটি সফটওয়্যার তৈরি করেছেন যার সাহায্যে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও চাকরির পরীক্ষাসহ যেকোন ধরনের পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়া ঠেকানো সম্ভব হবে।

আল-আমিন জানান, এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে মাত্র ২০-৩০ সেকেন্ডে প্রশ্নপত্র তৈরি করা সম্ভব। এই সফটওয়্যারের সাহায্যে পরীক্ষা শুরু হওয়ার কয়েক সেকেন্ড আগে প্রশ্নপত্র তৈরি করে পরীক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে দেওয়া সম্ভব। ফলে প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার আর কোন আশঙ্কা থাকবে না।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আজ শেষ হয়ে যাওয়া চার দিনব্যাপী ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭-তে ইনোভেশন সেন্টারে মো. আল-আমিন তার এই সফটওয়্যারটি প্রদর্শন করেন।

নতুন এই সফটওয়্যার নিয়ে মো. আল-আমিন বলেন, ‘অসাধু কিছু মানুষের জন্য প্রায়ই সব ধরনের পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার ঘটনা ঘটছে। আর এই প্রশ্নফাঁস রোধে ‘কোয়েশ্চেন সেন্টার’ সফটওয়্যারটি বেশ কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। এর জন্য আগে থেকে পরীক্ষার সিলেবাস ঠিক করে রাখতে হবে। এরপর প্রশ্নপত্র তৈরির সময় শুধু পরীক্ষার নাম, বছর, ক্লাস এবং বিষয় সেট করে কোয়েশ্চন বাটন চাপ দিলেই প্রশ্নপত্র তৈরি হয়ে যাবে।’

আল-আমিন আরও জানান, সফটওয়্যারটিতে সিলেবাস ও প্রশ্নের মানবণ্টন দেওয়ার ব্যবস্থা আছে। এছাড়া কয়টা প্রশ্ন আসবে, এমসিকিউ ও সৃজনশীল সব কিছু আলাদাভাবে সেট করা যাবে। সিলেবাসে যতগুলো প্রশ্ন থাকবে, সবগুলো ডাটাবেজে এন্ট্রি থাকবে। আর প্রশ্নপত্র তৈরি করতে সফটওয়্যারটি সময় নেবে মাত্র ২০-৩০ সেকেন্ড।

বিইউবিটির কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী মো. আল-আমিন তার বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. সাইফুর রহমানের তত্ত্বাবধায়নে প্রায় এক বছর ধরে কাজ করে ‘কোয়েশ্চেন সেন্টার’ নামক এই সফটওয়্যারটি উদ্ভাবন করেছেন।

Add comment

Security code
Refresh


advertisement