আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 27 মিনিট আগে

হাতে আছে মাত্র ১৮ বল। রান দরকার ৩৬। আধুনিক ক্রিকেটে এটা তেমন কোনো কঠিন কাজ নয়। কিন্তু যখন মাত্র দুই উইকেটের ভরসা, যারা আবার কেবলই বোলার; তখন নিশ্চয় কাজটা যথেষ্ট কঠিন। সেই কাজটা আরো কঠিন হয়ে উঠে, যদি ব্যাটসম্যান এই ধরনের পরিস্থিতির সঙ্গে সেভাবে পরিচিত না হন।

ariful helps khulna to win scoring 43 by 19 balls

সোমবার এমনই অবস্থা হয়েছিলো খুলনা টাইটান্সের ব্যাটসম্যান আরিফুল হকের। ৬৭টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ এবং ৭৬টি লিস্ট-এ ম্যাচ খেলা আরিফুল অবশ্য একেবারে অনভিজ্ঞ নন। স্বীকৃত ক্রিকেটে ছয় সেঞ্চুরির মালিক এই ব্যাটসম্যানের জন্য তারপরও কাজটা সহজ ছিলো না। কারণ বিপিএলের মতো টুর্নামেন্টে চাপ থাকে পাহাড় সমান। এ ধরনের টুর্নামেন্টে জয় ছাড়া আর কিছু ভাবতেই পারে না দলগুলো।

সব মিলিয়ে সত্যি সত্যি চাপের পাহাড়ই নেমে এসেছিলো আরিফুলের ঘাড়ে। সেই চাপের ভার ২৫ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান যেভাবে বহন করলেন, তা এক কথায় অবিশ্বাস্য; যেভাবে তিনি খুলনা টাইটান্সকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়লেন, তা নিঃসন্দেহে বহুদিন মনে রাখবেন মাঠে উপস্থিত হওয়া হাজার বিশেক দর্শক।

১৮ বলে ৩৬— এই সমীকরণ মেলানোর লক্ষ্যে আরিফুল সবার আগে সমানে পান হোসেন আলিকে। রাজশাহীর এই তরুণ পেসার বিপিএলে যথেষ্ট ভালো করছেন। আজকের ম্যাচে তার দারুণ এক ডেলিভারিতে বোল্ড হয়ে ফিরেছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। সুতরাং তাকে একটু সমীহই করার কথা ছিলো আরিফুলের।

কিন্তু তা করলেন না তিনি। বরং তাকেই করলেন লক্ষ্য। যে লক্ষ্যটা পূরণ হলো দুর্দান্তভাবে। হোসেন আলির ১৮তম ওভারে খুলনা পেয়ে যায় ১৮ রান। ফলে শেষ ১২ বলে প্রয়োজন দাঁড়ায় আরো ১৮ রান। মানে ওভারে নয় রান করে।

১৯তম ওভারে নয় রান নিয়ে, সেই কাজটা দারুণভাবে এগিয়ে নেন আরিফুল হক। শেষ ওভারেও থাকে নয় রানের লক্ষ্যই। রাজশাহীর অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি বল তুলে দেন স্বদেশি ডোয়াইন স্মিথকে, যিনি আবার আজই প্রথম মাঠে নামলেন এবারের বিপিএলে। আগের দুই ওভারে ১৬ রান দেয়া স্মিথ এবার প্রথম বলেই দিলেন ফুলটস। সজোরে হাঁকালেন আরিফুল। বল উড়ে গেলো মিড উইকেটের উপর দিয়ে সীমানার বাইরে— ছয়!

আর প্রয়োজনীয় তিন রান নিতে তখন আরিফুলের হাতে ছিলো পাঁচ বল। এর মধ্যে চার বল অব্যবহৃত রেখেই রানটা করে ফেলেন তিনি। খুলনা পেয়ে যায় অবিস্মরণীয় এক জয়।

ম্যাচ শেষে দর্শকরা খুঁজে ফিরছেন আরিফুলের পরিচয়! আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখনো পা পড়েনি আরিফুল হকের। ফলে স্বভাবতই একান্ত ক্রিকেটানুরাগী ছাড়া সাধারণ দর্শক পর্যায়ে তেমন নামধাম নেই রংপুরের এই ক্রিকেটারের। ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত পারফর্ম করা আরিফুল ঢাকা লিগে ও জাতীয় লিগে নিয়মিতই পারফর্ম করেন।

তবে গত দুই তিন বছরে তার পারফর্ম্যান্সের ধার বেড়ে গেছে অনেকখানি। তিন দিন আগেই ২৫ বছর পূরণ করা আরিফুল যদি এবারের বিপিএলের পারফর্মটা ধরে রাখতে পারেন, তবে হয়তো অদূর ভবিষ্যতে জাতীয় দলের জার্সিতেও দেখা যাবে তাকে।

Add comment

Security code
Refresh