আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 17 মিনিট আগে

বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে পারে না ভারত; এই কথাটা এখন থেকে আর সত্য নয়। কারণ এবার ইতিহাস বদলে দিয়েছে ধোনির দল। রোববার দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১৩০ রানের ব্যবধানে জিতেছে তারা। ভারতের করা ৩০৭ রানের জবাব দিতে গিয়ে প্রোটিয়ারা গুটিয়ে যায় ১৭৭ রানে।

বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে আগের তিন লড়াইয়ের প্রতিটিতেই হারতে হয়েছে ভারতকে। ফলে এবারও ধোনিদের চোখ রাঙাচ্ছিলো পুরোনো ইতিহাস। কিন্তু ব্যাটিংয়ে নেমে ইতিহাসকেই বদলে দেওয়ার প্রত্যয় দেখান ভারতীয়রা। ধাওয়ানের সেঞ্চুরি ও রাহানের হাফ সেঞ্চুরিতে ভর করে ৩০৭ রানের পুঁজি গড়ে তারা। 

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা অবশ্য খুব ভালো হয়নি ভারতের। ৯ রানে প্রথম উইকেট হারায় তারা। কোনো রান না করেই আউট হয়ে যান রহিত শর্মা। রান আউটের শিকার হন তিনি।

শুরুর ধাক্কাটা ভারত সামলে উঠে ধাওয়ান ও কোহলির ১২৭ রানের দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে। এরপর তৃতীয় উইকেটেও ধাওয়ান ও রাহানে। তারা করেন ১২৫ রান। দুটি জুটিতেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন ধাওয়ান।

এরপর আর ভারতের বড় কোনো জুটি গড়ে উঠেনি। ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ ১৩৭ রান করেন শিখর ধাওয়ান। এ ছাড়া ৭৯ রান করেন অজিঙ্কা রাহানে। ৪৬ রান আসে বিরাট কোহলির ব্যাট থেকে।

প্রোটিয়াদের হয়ে দুটি উইকেট নেন মরনে মরকেল। এ ছাড়া একটি করে উইকেট নেন ডেল স্টেইন, ইমরান তাহির ও ওয়েনে পারনেল।

এর আগের তিনবারের সাক্ষ্যাতেও আগেই ব্যাটিং করেছে ভারত। কোনোবারই ৩০০-এর বেশি করতে পারেনি তারা। তবে এবার পেরেছে। ইতিহাস বদলে দেওয়ার আভাসটা পাওয়া গিয়েছিলো তাতেই।

৩০৮ রানের জবাব দিতে নেমে অর্ধেক লক্ষ্য পূরণ করতে গিয়েই পাঁচ উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা। ফিল্ডিংয়ে দারুণ চমক দেখায় ভারত। বোলিংয়ে প্রোটিয়া লাইনকে ভড়কে দেন সামি। টপ অর্ডারের দুটি উইকেট নেন তিনি। ছাড়া রান আউটের ফাঁদে পড়েও দুটি উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। মোহিত শর্মাও নেন দুটি উইকেট। ক্রমেই ভারতের দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে উঠা এবি ডি ভিলিয়ার্স ও ডেভিড মিলার শিকার হন রান আউটের। ভিলিয়ার্স ৩০ রান করেছিলেন। মিলারের ব্যাট থেকে এসেছিলো ২২ রান। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৫৫ রান করেন ফ্যাফ ডু প্লেসিস। শেষ পর্যন্ত ১৭৭ রানে থেমে যায় প্রোটিয়াদের ভারত-বধের ইচ্ছে। ফলে ১৩০ রানে জয় ভারত।

এ জয়ের ফলে গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচে টানা জয় পেলো ধোনির দল। বিশ্বকাপ শুরুর আগে ভারতের শিরোপা ধরে রাখার সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন ছিলো অনেকের। পাকিস্তান ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে পাওয়া অনায়াস জয়ের পর সেই প্রশ্নের উত্তরটা মনে হয় পাওয়া হয়ে গেলো!

 

আপনি আরো পড়তে পারেন

দল থেকে বহিস্কার আল আমিন

শিখর ধাওয়ানের সেঞ্চুরি

আফগানিস্তানের চমক জাগানো হার

Add comment

Security code
Refresh


advertisement