আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 26 মিনিট আগে

পৃথিবীর প্রাচীন সব মিথোলজিতে পৃথিবী সম্পর্কিত কতো অদ্ভুত অদ্ভুত ধারণাই না দেয়া হয়েছে। সনাতন পৌরাণিক কাহিনীতে পৃথিবীর আকার বর্ণনা করা হয়েছে একটি থালার মতো। আর সেটাকে বহন করছে চারটি হাতি। তারা আবার ভর করে আছে এক মস্ত কাছিমের ওপর।

earth shape a plate

একই কাছিমের বর্ণনা আছে পশ্চিমের আমেরিকা কিংবা পূর্বের চীনের মিথোলজিতেও। এসব প্রাচীন গল্পে বলা হয়েছে, কাছিম একবার ভার বহন করে করে ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলো। আধুনিক বিজ্ঞানের আশীর্বাদ এসব ধারণাকে বিদেয় জানিয়ে প্রমাণ করেছে যে, পৃথিবীর আকৃতি প্রায় গোলাকার। শুধু তাই নয়, সৌরজগৎ, ছায়াপথ, মহাকাশের কথাও এখন স্কুলের শিক্ষার্থীরা জানে। পৃথিবী প্রায়-বৃত্তাকার পথে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে। আবার চাঁদ পৃথিবীর চারদিকে ঘুরে ফিরছে, এটাই সত্য বলে প্রতিষ্ঠিত।

কিন্তু বিজ্ঞানীদের এই সত্যটাকে মেনে নিতে নারাজ অনেকেই। এখনও এমন কিছু মানুষ আছেন যারা বিশ্বাস করেন না পৃথিবী গোল। তাদের ধারণা, পৃথিবী সম্পর্কে এমন ভুল ধারণা দিয়ে তাদের ধোঁকার মধ্যে রাখা হয়েছে। আর এই ধারণা পোষণকারীদের প্রধান হলেন মার্ক সার্জেন্ট। ইউটউবে তার প্রায় ৫০ হাজার অনুসারী আছেন। তারা সবাই দাবি তুলেছেন, পৃথিবী যে গোল, তার সপক্ষে নাসা এখনও কোন ছবি তুলতে পারেনি।

প্রাচীন ধারণার অনুসারীরা দাবি করেছেন, তাদের গবেষণায় দেখা গেছে, এ সবই ভুল তথ্য। বরং পৃথিবী হলো চাকতির মতো। পৃথিবীর সব মহাদেশ চাকতির কেন্দ্র থেকে অন্যদিকে ছড়িয়ে আছে বলেই তারা প্রমাণ পেয়েছেন। 

কিন্তু এই চাকতি-তত্ত্বের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো, যেকোন থালারই কিনারা থাকে এবং সে কিনারা উপচে পড়ে যাওয়াও সম্ভব। এক্ষেত্রে প্রশ্ন ওঠে, পৃথিবীর প্রান্তে গিয়ে কেউ পড়ে যাচ্ছে না কেন!

প্রাচীন ধারণার অনুসারীরা এর উত্তরে বলেছেন, পৃথিবী নামক চাকতির পরিধিজুড়েই নাকি অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশ! এই বিশাল বরফের অঞ্চলই আমাদের নাকি গড়িয়ে পড়া থেকে রক্ষা করছে। পৃথিবীর পুরুত্ব নাকি মোটেও হাজার হাজার কিলোমিটার নয়। সর্বোচ্চ ৫০ কিলোমিটার গভীরে যেতে পারলেই নাকি চাকতির উল্টো পিঠে যেতে পারবে মানুষ!

এই ধারণার সবচেয়ে মজার বিষয়টি হচ্ছে, নিজেদের এই জ্ঞান একে অন্যের সাথে ভাগাভাগি করার জন্য সবাই একটি সম্মেলনে অর্থ খরচ করে একত্রিত হয়েছিলেন। গত ৯ ও ১০ নভেম্বর নর্থ ক্যারোলাইনার র‍্যালেইয়ে আয়োজিত প্রথম ‘ফ্ল্যাট আর্থ ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স’-এ পৃথিবীর চাকতি-তত্ত্বে বিশ্বাসীরা একত্রিত হয়েছিলেন। তারা ২৪৯ ডলার অর্থাৎ ২০ হাজার টাকায় সম্মেলনের টিকিট কিনে একে অপরকে নিশ্চিত করেছেন, তারা সবাই এক মতের অনুসারী!

Add comment

Security code
Refresh