আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 52 মিনিট আগে

গ্যাটকো দুর্নীতি মামলায় কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ বাকি আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য আজ সোমবার দিন ধার্য রয়েছে। ফলে হাজিরার জন্য আজ তাকে আদালতে আনা হতে পারে। এর আগে এ মামলায় নানা কারণে কয়েক দফা অভিযোগ গঠনের শুনানি পিছিয়েছে।

khaleda zia in wheel chair

মামলাটির বিচারকাজ চলছে পুরান ঢাকার বক্সিবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী ঢাকার তিন নম্বর বিশেষ জজ সৈয়দ দিলজার হোসেনের আদালতে। সর্বশেষ গত ২৭ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে এ আদালতে হাজির করা হয়েছিল।

সেদিন খালেদা জিয়ার পক্ষে তার আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার, জয়নাল আবেদিন মেজবা ও জিয়াউদ্দিন জিয়া শুনানি করে আদালতের কাছে সময় প্রার্থনা করেন। তবে সময় আবেদনের বিরোধীতা করে শুনানি করেন রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি মোশারফ হোসেন কাজল। পরে আসামী পক্ষের সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য ১৮ মার্চ পরবর্তী দিন ধার্য করেন আদালত।

মামলার নথি সূত্রে জানা যায়, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান গ্যাটকোকে ঢাকার কমলাপুর আইসিডি ও চট্টগ্রাম বন্দরের কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ের কাজ পাইয়ে দিয়ে রাষ্ট্রের ১৪ কোটি ৫৬ লাখ ৩৭ হাজার ৬১৬ টাকার ক্ষতি সাধনের অভিযোগে ২০০৭ সালে মামলা করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) উপ-পরিচালক গোলাম শাহরিয়ার চৌধুরী।

তেজগাঁও থানায় দায়ের করা এ মামলায় খালেদা জিয়া ও তার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোসহ ১৩ জনকে আসামি করা হয়। পরের বছর অভিযোগপত্র দেয়ার সময় আসামি আসামির সংখ্যা বাড়িয়ে করা হয় ২৪ জন।

মামলার অপর আসামিরা হলেন- সাবেক মন্ত্রী এম সাইফুর রহমান, আব্দুল মান্নান ভূইয়া, এম কে আনোয়ার, জামায়াতে ইসলামীর আমির সাবেক মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী, চট্টগ্রাম বন্দরের প্রধান অর্থ ও হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা আহমেদ আবুল কাশেম ও বিএনপি চেয়ারপারসনের ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো।

সাবেক মন্ত্রী এম শামছুল ইসলাম, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের (চবক) সাবেক চেয়ারম্যান কমোডর জুলফিকার আলী, প্রয়াত মন্ত্রী কর্নেল আকবর হোসেনের (অব.) স্ত্রী জাহানারা আকবর, দুই ছেলে ইসমাইল হোসেন সায়মন এবং একেএম মুসা কাজল, এহসান ইউসুফ, সাবেক নৌ সচিব জুলফিকার হায়দার চৌধুরী, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের (চবক) সাবেক সদস্য এ কে রশিদ উদ্দিন আহমেদ, গ্লোবাল এগ্রোট্রেড প্রাইভেট লিমিটেডের (গ্যাটকো) পরিচালক শাহজাহান এম হাসিব, গ্যাটকোর পরিচালক সৈয়দ তানভির আহমেদ ও সৈয়দ গালিব আহমেদ, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সাবেক চেয়ারম্যান এএসএম শাহাদত হোসেন, বন্দরের সাবেক পরিচালক (পরিবহন) এ এম সানোয়ার হোসেন ও বন্দরের সাবেক সদস্য লুৎফুল কবীর।

এদের মধ্যে মারা গেছেন- সাবেক মন্ত্রী এম সাইফুর রহমান, আব্দুল মান্নান ভূইয়া, এম কে আনোয়ার, জামায়াতে ইসলামীর আমির সাবেক মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী (যুদ্ধাপরাধ মামলায় ফাঁসি হয়েছে), চট্টগ্রাম বন্দরের প্রধান অর্থ ও হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা আহমেদ আবুল কাশেম ও বিএনপি চেয়ারপারসনের ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের সাজা নিয়ে পুরানো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী রয়েছেন বিএনপি প্রধান খালেদা জিয়া। পরে এ মামলায় সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করে হাইকোর্ট। এছাড়া জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় তাকে সাত বছরের জেল দেয়া হয়েছে।