advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 12 মিনিট আগে

রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় সু-প্রভাত নামের একটি বাসের চাপায় প্রাণ হারায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) ছাত্র আবরার আহম্মেদ চৌধুরী। এরপরই আন্দোলনে নামে তার সহপাঠীসহ সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

bashundhara gate blockade

সকাল থেকেই রাজধানীর প্রগতি সরণি সড়ক অবরোধ করে রাখা হয়। পরে মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে পুলিশ, এলাকার কাউন্সিলর ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুরোধে আন্দোলন স্থগিত করে শিক্ষার্থীরা।

বিইউপি'র সহকারী রেজিস্ট্রার মাকসুদ বলেন, 'আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, স্থানীয় কাউন্সিলর ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুরোধে শিক্ষার্থীরা আজকের মতো আন্দোলন স্থগিত করেছে।'

শিক্ষার্থীরা বলছেন, মঙ্গলবার আন্দোলন স্থগিত হলেও বুধবার সকাল ৮টা থেকে আবারও আন্দোলন শুরু হবে। তারা সারাদেশের শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে অবস্থান নিয়ে আন্দোলনে শরিক হওয়ার আহ্বান জানান।

শিক্ষার্থীরা অবরোধ উঠিয়ে নেয়ার পর সন্ধ্যা ৬টা থেকে প্রগতি সরণিতে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

এর আগে রাজধানীর নর্দ্দায় সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়কের দাবিতে চলমান আন্দোলনে সংহতি জানান ডাকসুর নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুর। শিক্ষার্থীদের দাবিগুলোর সঙ্গে একমত পোষণ করে নুর বলেন, 'আমরা সবসময় চাই সড়কে নৈরাজ্য বন্ধ হোক। সড়কে সাধারণ মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত হোক।' সে সময় তিনি শিক্ষার্থীদের সবগুলো দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করে আন্দোলনে থাকবেন বলে ঘোষণা দেন। নুরের আগে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নতুন মেয়র আতিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে এসে ফুট ওভারব্রিজ নির্মানের ঘোষণা দেন।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর বসুন্ধরা গেট এলাকায় জেব্রা ক্রসিং দিয়ে রাস্তা পারাপারের সময় দুই বাসের অসুস্থ প্রতিযোগিতায় বিইউপির শিক্ষার্থী আবরার আহম্মেদ চৌধুরী নিহত হন। সে বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। তার বাবা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আরিফ আহমেদ।

sheikh mujib 2020