advertisement
আপনি দেখছেন

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের ‘অশালীন’ মন্তব্যে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ঠেকাতে কৃর্তপক্ষের হল বন্ধের ঘোষণার পরও শিক্ষার্থীরা হলে অবস্থান করছেন।

barisal university campus

তবে শেখ হাসিনা হল থেকে কিছু শিক্ষার্থীকে বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। খবর পেয়ে শেরে বাংলা হল ও বঙ্গবন্ধু হলের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল সহকারে শেখ হাসিনা হলের বাইরে থাকা শিক্ষার্থীদের হলের মধ্যে ঢোকার ব্যবস্থা করে দেন।

শিক্ষার্থীরা জানান, শেখ হাসিনা হল থেকে ছাত্রীদের নামিয়ে দেয়া হয়। পরে কিছু ছাত্রী হল ত্যাগ করলেও কিছু আবাসিক ছাত্রী শহীদ মিনারে অবস্থান নেয়। পরে বঙ্গবন্ধু ও শেরে বাংলা হলের ছাত্ররা শেখ হাসিনা হলের সামনে গিয়ে বাইরে থাকা ছাত্রীদের হলের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয় এবং অবস্থান নিতে বলে।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দিলে শিক্ষার্থীরা তা মানেননি।

বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. এসএম ইমামুল হক স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ক্যাম্পাসে নানা কর্মসূচির ঘোষণা দিলেও ফুল দেয়া ছাড়া আর কোনো অনুষ্ঠানে (মধ্যাহ্নভোজ ও সাংস্কৃতিক) শিক্ষার্থীদের রাখা হয়নি। এর প্রতিবাদ করা হলে শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলেন উপাচার্য। এর প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করে। পরে কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করে এবং হল ত্যাগের নির্দেশ দেয়।