advertisement
আপনি দেখছেন

নিত্যপণ্যের ক্রমাগত উর্ধ্বগতিতে চরম হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক। সরেজমিনে বাজার পরিস্থিতি দেখে সাধারণ মানুষের মুখের দিকে তাকিয়ে হলেও বাজার নিয়ন্ত্রণে ব্যবসায়ীদের কাছে দাম কমানোর মিনতি জানিয়েছেন।

nanak bazarদ্রব্যমূল্যের দাম কমাতে ব্যবসায়ীদের কাছে মিনতি করেন নানক

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর পল্টনের একটি হোটেলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শিল্প বিষয়ক উপ কমিটির আয়োজনে ‘নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি রোধকল্পে ব্যবসায়ী সমাজের করণীয়’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় ব্যবসায়ীদের প্রতি তিনি এই অনুরোধ জানান।

সভার আগে সরেজমিনে কুমিল্লার নিমসা, রাজধানীর মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট, টাউনহলসহ বিভিন্ন বাজার পরিদর্শন করে নানক বলেন, কুমিল্লার নিমসা বাজারের ৭ টাকার ফুলকপি কারওয়ান বাজারে তিন হাত বদল হয়ে ২০ টাকা হয়ে যায়। সেখান থেকে আসা একই ফুলকপি কৃষি মার্কেটে গিয়ে কিভাবে ৪০ টাকা ৫০ টাকা হয় ব্যবসায়ীদের কাছে এমন প্রশ্ন তোলেন তিনি।

এমন পরিস্থিতি আওয়ামী লিগের মতো কোনো জনবান্ধব সরকার কিছুতেই মেনে নিতে পারে না বলে জানান নানক। ‘বাজারে অস্থিরতা আছে’ এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, বাজার পরিস্থিতিকে কোনভাবেই লাগামহীন পাগলা ঘোড়া হতে দেওয়া চলবে না। এটা জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্যেও খুবই অস্বস্তিকর।

বিদেশ থেকে আমদানি করার পরও পেঁয়াজের কেজি ২শ টাকার ওপরে কেন এমন প্রশ্ন উঠলে তিনি বলেন শুধু পেঁয়াজ কেন, বরং বাজারের সবকিছুর দাম নিয়েই কথা বলা উচিত। তেল, চাল, আদা, রসুনের দাম কেন বাড়ছে তাও খতিয়ে দেখা হবে।

এসময় রমজান মাসে ব্যবসায়ীদের দ্রব্যমূল্য বাড়ানোকে দুঃখজনক আখ্যা দিয়ে নানক বলেন, একদিকে নাম পড়ে আরেকদিকে রোজাদারদের জিম্মি করে অর্থ উপার্জন কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। 

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য এবং সংশ্লিষ্ট উপ কমিটির আহ্বায়ক কাজী আকরাম উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে সভা অনুষ্ঠিত এ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক আবদুস সাত্তারসহ ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতারা।

sheikh mujib 2020