advertisement
আপনি দেখছেন

ঢাকাকে আধুনিক শহর হিসেবে গড়ে তুলতে বিভিন্ন পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। এর মধ্যে ঢাকা উত্তর এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের জন্য সর্বোচ্চ ৮ তলা ভবন নির্মাণের অনুমোদন অন্যতম। নতুন এ কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে রাজধানীর সম্পূর্ণ চেহারাই পাল্টে যাবে বলে মনে করছেন রাজউক কর্মকর্তারা।

rajuk building dhaka

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে রাজউক ‘ড্যাপ’ প্রকল্প হাতে নিয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে ভূমি পুনর্বিন্যাস, উন্নয়নস্বত্ব প্রতিস্থাপন পন্থা, ভূমি পুনঃউন্নয়ন, ট্রানজিট ভিত্তিক উন্নয়ন, উন্নতি সাধন ফি, স্কুল জোনিং ও ডেনসিটি জোনিং। এই প্রকল্পের মাধ্যমে পুরান ঢাকাসহ রাজধানীর অনেক ঘিঞ্জি ও অপরিকল্পিত এলাকা নতুন করে সাজানো হবে।

এ বিষয়ে ‘ড্যাপ’ প্রকল্প পরিচালক আশরাফুল ইসলাম বলেন, পুনঃউন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে বিশ্বের অনেক দেশেই শহর উন্নয়ন করা হয়েছে। তাই ভূমি মালিকদের বোঝানো হয়েছে যে, যদি কেউ এ প্রকল্পের আওতায় না আসে, তাহলে তাকে নির্ধারিত উচ্চতার বেশি ভবন নির্মাণের অনুমোদন দেয়া হবে না।

তিনি বলেন, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের পাঁচটি এলাকায় সর্বোচ্চ আটতলা পর্যন্ত ভবন নির্মাণ করা যাবে। কিছু কিছু এলাকায় সাততলা ও ছয়তলা ভবনের অনুমতি দেয়া হবে। এছাড়াও অধিকাংশ ওয়ার্ডেই চার ও পাঁচতলা ভবনের অনুমোদন দেয়া হবে। তবে বিশেষ শর্ত সাপেক্ষে দশতলা পর্যন্ত ভবন নির্মাণের অনুমতি দেয়া হতে পারে।

‘কোনো ভবন মালিক যদি তার ভবনের একটি ফ্লোর স্বল্পআয়ের মানুষদের জন্য বরাদ্দ রাখেন, তাহলে নির্দিষ্ট উচ্চতার চেয়ে আরো দুইতলা বেশি নির্মাণের অনুমতি দেবে রাজউক। এছাড়া ড্যাপের প্রস্তাবিত মানদণ্ড অনুযায়ী কোনো এলাকায় বাড়তি স্কুল থাকলে সেখানে নির্ধারিত উচ্চতার চেয়ে একতলা বেশি অনুমোদন দেয়া হবে।’ যোগ করেন আশরাফুল ইসলাম।

জানা যায়, ২০১৬ থেকে ২০৩৫ সালের জন্য প্রণয়ন করা হয়েছে এ প্রকল্পটি। এতে সম্পূর্ণ ঢাকা অঞ্চলকে ১১ ধরনের ভূমি ব্যবহার জোনে বিভক্ত করা হয়েছে। মোট এক হাজার ৫২৮ বর্গকিলোমিটার এলাকার জন্য ২০ বছর মেয়াদের এ পরিকল্পনা ২০৩৫ সাল পর্যন্ত কার্যকর থাকবে।