advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 21 মিনিট আগে

হাকিমপুরী জর্দায় ক্ষতিকর সিসা, ক্যাডমিয়াম ও ক্রোমিয়ামের মতো ভারী ধাতুর উপস্থিতি পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ (বিএফএসএ)। এ জন্য প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করা হবে বলে জানিয়েছেন বিএফএসএর চেয়ারম্যান সৈয়দা সারওয়ার জাহান।

hakimpuri zorda banহাকিমপুরী জর্দার ওপর নিষেধাজ্ঞা

সৈয়দা সারওয়ার জাহান বলেন, তাদের জর্দায় কয়েকটি ভারী ধাতুর উপস্থিতি পাওয়া গেছে, যা জর্দার মধ্যে থাকার কোনো সুযোগ নেই। তাই সারাদেশ থেকে সমস্ত হাকিমপুরী জর্দা তুলে নেয়ার নির্দেশ দেয়া হবে। যদি কেউ নির্দেশনা পালন না করে, তাহলে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে এগুলো জব্দ করা হবে।

তিনি বলেন, ২ মাস আগে বাজার থেকে ২২ ধরনের জর্দা, খয়ের ও গুলের নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় প্রতি কিলোগ্রামে দশমিক ২ মিলিগ্রাম থেকে ১১ দশমিক ২ মিলিগ্রাম পর্যন্ত ক্ষতিকর উপাদানের উপস্থিতি পাওয়া যায়। এর মধ্যে হাকিমপুরী জর্দার প্রতি কেজিতে দশমিক ২৬ মিলিগ্রাম সিসা, দশমিক ৯৫ মিলিগ্রাম ক্যাডমিয়াম এবং ১ দশমিক ৬৫ মিলিগ্রাম ক্রোমিয়াম পাওয়া যায়।

এরপর হাকিমপুরী জর্দার মালিক হাজি মো. কাউছ মিয়া বিএফএসএর এমন তথ্য প্রকাশ করার প্রতিবাদ করে দাবি করেন, ‘বিএফএসএ যেসব জর্দা পরীক্ষা করেছে, সেগুলো আসলে নকল জর্দা, হাকিমপুরীর নয়।’

hakimpuri zardaহাকিমপুরী জর্দা

প্রতিষ্ঠানটির এমন দাবির প্রেক্ষিতে বিএফএসএর কর্মকর্তারা আবারো তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এবার হাকিমপুরী জর্দার ফ্যাক্টরি থেকে পুনরায় চারটি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়। এই নমুনাগুলোতেও সীসা, ক্যাডমিয়াম ও ক্রোমিয়ামের উপস্থিতি ধরা পড়ে।

বিএফএসএ বলছে, যে ভারী ধাতুগুলো জর্দায় পাওয়া গেছে, সেগুলোর মূল উৎস রঙ। বিভিন্ন শিল্প-কারখানা তাদের প্রয়োজনে এসব রঙ আমদানি করে থাকে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে ফানির্চারের বার্নিশেও এসব রঙ ব্যবহার করা হয়।

sheikh mujib 2020