advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 57 মিনিট আগে

আজ ১৬ ডিসেম্বর। মহান বিজয় দিবস। বাংলাদেশের বিজয়ের ৪৮তম বার্ষিকী আজ। দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানাদারবাহিনীকে পরাজিত করে বিজয় অর্জন করে বাংলাদেশ। পৃথিবীর বুকে মাথা মাথা উঁচু করে দাঁড়ায় নতুন এক স্বাধীন ভূখণ্ড।

victory day

১৯৫২ সালে বাংলাভাষার জন্য বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়ে যে লড়াইয়ের সূচনা হয়েছিল তা পরিপূর্ণ বিকশিত হয়ে আলোর মুখ দেখে ১৯৭১ সালের আজকের এই দিনে। দীর্ঘকাল ধরে পাকিস্তানি শাষকগোষ্ঠীর শোষণ ও বঞ্চনার বিরুদ্ধে লড়াই করে পরাধীনতার শৃংখল ভেঙে জন্ম হয় লাল-সবুজের পতাকার।

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণের পর সারা বাংলাদেশের মানুষ দেশ স্বাধীন করার ব্রত নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে পাক হানাদার বাহিনীর ওপর। দীর্ঘ সংগ্রামের পর ৯৩ হাজার দখলদার সৈন্য নিয়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মিত্র বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে পাক হানাদার বাহিনী। জন্ম হয় বাংলাদেশের। ৩০ লক্ষ শহীদের রক্ত আর লাখো মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে বাংলার জমিনে জন্ম নেয় স্বাধীনতার লাল সূর্য।

জাতীয় জীবনে নানা প্রতিবন্ধকতার মাঝেও যে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এর অন্যতম প্রেরণা হলো মুক্তিযুদ্ধ। স্বাধীনতার চেতনায় উদ্দীপ্ত হয়ে স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর এদেশের মাটিতে বিচার হয়েছে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় যারা বাংলাদেশের স্বপ্ন বিনষ্ট করার চেষ্টা করেছিল সেইসব যুদ্ধাপরাধীদের। এদেশের প্রতিটি মানুষ বিশ্বাস করে দেশের সকল যুদ্ধাপরাধীর বিচার একদিন এই বাংলার মাটিতে কার্যকর হবে।

প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ১৬ ডিসেম্বর যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে দেশব্যাপী পালিত হবে। বিজয়ের প্রথম প্রহরে তোপধ্বনির মাধ্যমে রাষ্ট্রীয়ভাবে বিজয় দিবসের নানা কর্মসূচি শুরু হবে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে শোভা পাবে জাতীয় পতাকা। বাংলার ঘরে ঘরে উড়বে লাল-সবুজের পতাকা। সূর্যোদয়ের পরপরই রাজধানীর অদূরে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে মুক্তিযুদ্ধের সময়কার শহীদদের অমর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেতাসহ জাতীয় নেতৃবৃন্দ।

sheikh mujib 2020