advertisement
আপনি দেখছেন

২০১৯ সালের দুর্নীতির ধারণা সূচকে (সিপিআই) বাংলাদেশের অবস্থান সর্বোচ্চ দিক থেকে ৩ ধাপ এবং সর্বনিম্ন দিক থেকে ১ ধাপ এগিয়েছে। কিন্তু সূচকের স্কেলে কোন পরিবর্তন আসেনি। ফলে দেশে দৃশ্যত দুর্নীতি কিছুটা কমলেও আদৌত তা একই আছে।

tib press conference 3

বৃহস্পতিবার রাজধানীর ধানমণ্ডির মাইডাস সেন্টারে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) কার্যালয়ে 'দুর্নীতির ধারণ সূচক-২০১৯' শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। এর আগে সারাবিশ্বে সিপিআই প্রকাশ করে বার্লিনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালে (টিআই)।

সিপিআই অনুযায়ী, দুর্নীতিতে বিশ্বের ১৮০টি দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ (ভালো থেকে খারাপ) দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৬তম এবং সর্বনিম্ন (খারাপ থেকে ভালো) দিক থেকে ১৪তম। যা গত বছরের তুলনায় সর্বোচ্চ দিক থেকে তিন ধাপ এবং সর্বনিম্ন দিক থেকে এক ধাপ এগিয়েছে। কিন্তু দুর্নীতির স্কেল অনুযায়ী, ১০০ এর মধ্যে বাংলাদেশের স্কোর ২৬। যা গত বছরও একই ছিল।

এছাড়া এই একই স্কোর নিয়ে দুর্নীতিতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয় এবং এশিয়ার ৩১টি দেশের মধ্যে চতুর্থ।

cpi list

ড. ইফতেখারুজ্জামান এসব তথ্য তুলে ধরে বলেন, দুর্নীতির সূচকে বাংলাদেশের স্কোর ও অবস্থান উদ্বেগজনক। এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোতে শুদ্ধাচার, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার ব্যবস্থা করা জরুরি।

২০০১ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ দুর্নীতিতে শীর্ষে ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণার পর টিআইবির প্রত্যাশা ছিল দুর্নীতিতে বাংলাদেশে অবস্থান আরো ভালোর দিকে যাবে। কিন্তু রাজনীতিতে শুদ্ধাচার না থাকায়, সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে জবাবদিহিতার ব্যবস্থা না থাকায় এবং তথ্য অধিকার আইনসহ নানা কারণে বাংলাদেশের অবস্থানের তেমন কোন উন্নতি হয়নি।

টিআই কর্তৃক প্রকাশিত দুর্নীতির ধারণা সূচকে ৮৭ স্কোর পেয়ে বিশ্বের ১৮০টি দেশের মধ্যে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় যৌথভাবে অবস্থান করছে নিউজিল্যান্ড ও ডেনমার্ক। একই স্কোর নিয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে ফিনল্যান্ড এবং ৮৫ স্কোর নিয়ে যৌথভাবে তৃতীয় স্থানে অবস্থান করছে সুইজারল্যান্ড, সিঙ্গাপুর ও সুইডেন।

এদিকে সূচকে ৯ স্কোর পেয়ে গতবারের মতো এবারও সবচেয়ে বেশি দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় শীর্ষে অবস্থান করছে সোমালিয়া। এরপরই ১২ স্কোর পেয়ে তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে দক্ষিণ সুদান এবং ১৩ স্কোর পেয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে সিরিয়া।