advertisement
আপনি দেখছেন

মিরপুরের চলন্তিকা বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডের পর সবাই নিজের মাল-সামানা খুঁজে পেতে ব্যস্ত। কেউ ব্যস্ত নিজের বেঁচে যাওয়া মাল-সামানা ধ্বংসস্তূপ থেকে সরানোয়। এর মাঝেই ব্যতিক্রম রুমানা আক্তার তানজিদা। তার সব পাঠ্যবই গতরাতের আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। সে আপন মনে সেই পুড়ে যাওয়া বইগুলো ঘাটছিলো।

rumana dreams of becoming a doctor

রুমানা জানায়, আগুনে তার বইখাতা,ব্যাগ সব পুড়ে গেছে। সে বড় হয়ে ডাক্তার হতে চায়। গরীব মানুষকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়ার ইচ্ছা তার।

তার বাবা দিনমজুর বাদল জানান, আয় তেমন নেই। কোনোরকম এই বস্তিতে থেকে সন্তানদের লেখাপড়া করাচ্ছেন। তার দুই সন্তান রুমানা পঞ্চম শ্রেণিতে ও ছেলে শরীফ ইসলাম দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। তার ইচ্ছা ছেলেমেয়েকে সর্বোচ্চ পর্যায় পর্যন্ত পড়ালেখা করাবেন। কিন্তু গতকাল রাতের আগুন তার সে স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়েছে। ঘরের মালামালের পাশপাশি তার সন্তানদের বইখাতাও পুড়ে ছাই হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দিবাগত শেষ রাতের দিকে রাজধানীর মিরপুরের চলন্তিকা বস্তিতে আগুন লেগে ১৫০টি ঘর ছাই হয়ে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিসের ১৪টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। এ ঘটনায় শারমিন নামের এক নারী অগ্নিদগ্ধ হয়ে ঢাকা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন। কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন।