advertisement
আপনি দেখছেন

চিত্রনায়ক সালমান শাহের মৃত্যুরহস্য নিয়ে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গত সোমবার প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে পিবিআই জানায়, সালমান শাহকে কেউ হত্যা করেনি, তিনি পারিবারিক কলহসহ পাঁচটি কারণে আত্মহত্যা করেছেন।

samira haque

পিবিআই এর এ প্রতিবেদন প্রকাশের পর বিভিন্ন গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন সালমান শাহের সাবেক স্ত্রী সামিরা হক।

তিনি বলেন, পিবিআই এর এ প্রতিবেদন খুব একটা আনন্দের না, আবার বেদনারও না। ইমনের (সালমান শাহ) মৃত্যুর পর থেকেই তিনি বলে আসছেন এটি আত্মহত্যা। কারণ সালমান শাহ'র ঘটনা কেউ তার চেয়ে ভালো জানবে না। তিনি যেটা জানেন সেটাই এতদিন বলে এসেছেন। পিবিআইয়ের তদন্তেও একই জিনিস উঠে এসেছে।

পিবিআইয়ের প্রতিবেদনে সালমান শাহের মৃত্যুর যেসব কারণ তুলে ধরা হয়, তার একটি হলো- চিত্রনায়িকা শাবনূরের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা। সামিরা নাকি একদিন ডাবিং রুমে সালমান শাহকে ঘনিষ্ঠ অবস্থায় শাবনূরের সঙ্গে দেখে ফেলেন।

এ বিষয়ে সামিরা বলেন, পিবিআইয়ের প্রতিবেদনে শাবনূরের সঙ্গে সালমানের ঘনিষ্ঠতার ব্যাপারটি যেভাবে উঠে এসেছে ঠিক তেমন না। ওই সময় শাবনূরের বয়স অনেক কম ছিল। সে নিয়মিত তাদের বাসায় আসা-যাওয়া করতো। ইমনকে ভাইয়া বলে ডাকত। খুব বেশি মেলামেশা করতো। নিজের স্বামীর সঙ্গে অন্য কারোর এভাবে মেলামেশা কোনো স্ত্রীর ভালো লাগবে না। তারও ভালো লাগেনি। তবে ঘনিষ্ঠতার বিষয়ে প্রতিবেদনে যেভাবে বলা হয়েছে, ততটা না।

ডাবিং রুমের ঘটনার ব্যাপারে তিনি বলেন, ওই দিন ডাবিং রুমে শাবনূর বার বার ইমনের কানের কাছে মুখ নিয়ে কথা বলছিল। এই দৃশ্য দেখে তার ভালো লাগেনি। তাই তিনি সেখান থেকে চলে যান।

সামিরা আরো বলেন, এ ঘটনার পর ইমন তার কাছে প্রতিজ্ঞা করে সে শাবনূরের সঙ্গে আর কোনো চলচ্চিত্রে অভিনয় করবে না। শুধু যেগুলো ইতোমধ্যে চুক্তিবদ্ধ আছে সেগুলো ছাড়া। তবে শুটিং ও ডাবিংয়ের সময় তাকে নিয়ে যাবে। যদিও সালমানের শুটিংয়ের সময় তার এমনিতেই থাকা হতো। কারণ তিনি ছিলেন ইমনের ড্রেস ডিজাইনার।

sheikh mujib 2020