advertisement
আপনি দেখছেন

নিজের লোক হলেও অপরাধীদের খাতির করতে নিষেধ করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। তিনি বলেছেন, ‘আমার সামনে সবাই ফেরেশতা সাজে। আমার কোনো মাস্তান, লাঠি কিংবা বন্দুকের প্রয়োজন নেই। কারণ আমার থেকে বড় মাস্তান আর কেউ নেই।’

shamim osman speachনারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান

আজ রোববার নারায়ণগঞ্জ পুলিশ লাইন মাঠে পুলিশ মেমোরিয়াল ডে আলোচনায় ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে পুলিশের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শামীম ওসমান বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে কিছু সংখ্যক প্রশাসনের কর্মকর্তার কারণে আমাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। তাই আমাদের অন্য কোনো দলকে দমন করার জন্য পুলিশের দরকার নেই, আমরাই যথেষ্ট। রাতের বেলা ডাকলে এখনও এক ঘণ্টার মধ্যে দুই লাখ লোক বের করার মতো ক্ষমতা আমার আছে।’

হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, ‘১৯৭৯ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে আটকে রেখেছিলাম। সেই লোক আমরা। কীভাবে আন্দোলন করতে হয়, আর কীভাবে তা ঠেকাতে হয় তা আমরা ভালোভাবেই জানি।’

তিনি বলেন, ‘২০০১ সালের আগে আমার কাছে যে পরিমাণ অস্ত্র ছিল তা তখনকার পুলিশ ফোর্সের কাছেও ছিল না। তবে বর্তমানে আমার গাড়িতে অস্ত্র আছে কিনা তা আমি নিজেও জানি না। আগে রাজনৈতিক দর্শন একরকম ছিল, আর এখন তা পাল্টে গেছে। তখন জিন্দাবাদ শুনতে ভালো লাগতো, আর এখন প্রশাসনের মধ্যে দলবাজি পছন্দ করি না।’

আওয়ামী লীগের এই সাংসদ বলেন, ২০০১ সালের পর চিন্তার মধ্যে অনেক পরিবর্তন হয়েছে। এখন আওয়ামী লীগ করা কোনো কোয়ালিটি হতে পারে না। নেতৃত্ব ও সাংগঠনিক গুণাবলী যার মধ্যে আছে সে ব্যক্তিই কোয়ালিটি সম্পন্ন। রাজনীতিবিদ হয়েও যারা চুরি করে তাদের দলে না থাকাই ভালো।

এ সময় আরো বক্তব্য দেন সোনারগাঁও-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন ও পুলিশ সুপার মো. জাহিদুল আলম প্রমুখ।