advertisement
আপনি দেখছেন

রাজধানীর নিউ স্কাটনের দিলু রোডে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দগ্ধ শহিদুল কিরমানী রনিও মারা গেছেন। আজ সোমবার ভোর ৫টায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এর মধ্য দিয়ে আগুনে দগ্ধ তিন সদস্যের একটি পরিবারই না ফেরার দেশে চলে গেলো।

shofidu kirmani rony

বিষয়টি নিশ্চিত করে ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক ডাক্তার সামন্ত লাল সেন জানান, শরীরের ৪৩ শতাংশ দগ্ধ হওয়ায় আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন শহিদুল। চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হলে মৃতদেহটি মর্গে রাখা হয়েছে।

শহিদুলের ছোট বোন নাসরিন আক্তার জানিয়েছেন, ভোরে চিকিৎসক শহিদুলের মৃত্যুর বিষয়টি তাদের জানানো হয়। তার লাশ এখন নরসিংদীর গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি চলছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার ভোরে দিলু রোডের আবাসিক এলাকার পাঁচতলা একটি বাড়িতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ওই ভবনের তৃতীয় তলায় বসবাস করা শহিদুল কিরমানী রনি ও জান্নাতুল ফেরদৌসী আগুনে দগ্ধ হন। কালো ধোয়ার মধ্যে বাসা থেকে বের হওয়ার সময় রনির কোল থেকে আগুনে পড়ে যায় চার বছরে ছেলে একেএম রুশদী। তাকে বাঁচাতে মা-বাবা আগুনে ঝাঁপ দিলে গুরুতর দগ্ধ হন তারা।

এ ঘটনায় এর আগে গতকাল রোববার সকালে রুশদী এবং তার আগে জান্নাত মারা যান। ঘটনার দিন মারা যায় তিনজন। এর আগে মারা যাওয়াদের মধ্যে রয়েছেন বায়িং হাউসের অফিস সহকারী আবদুল কাদের (৪৫) ও ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী আফরিন জান্নাত জ্যোতি (১৮)।