advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের দাসত্বের নয়, বরং বন্ধুত্বের সম্পর্ক বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বুধবার ধানমণ্ডিতে দলীয় সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

kader al comillaসড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

ওবায়দুল কাদের বলেন, এখন যারা মোদির বিরোধিতা করছেন তারাই এক সময় ভারতের সঙ্গে দাসের মতো আচরণ করেছেন। তাদের নেত্রী খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন ভারতে গিয়ে পানির ন্যায্য হিস্যা নিয়ে আলোচনা করতে ভুলে যান। ভারতের নেতাদের খুশি করতে তারা নিজেদের দাসের পর্যায়ে নিয়ে গেছেন।

তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের প্রধান মিত্র ছিল ভারত। কাজেই তাদের বাদ দিলে মুজিববর্ষ পূর্ণতা পাবে না। তাই এখন যারা মোদির বিরোধিতা করছেন তারা প্রকৃতপক্ষে মুজিববর্ষেরই বিরোধিতা করছে।

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা এবং স্বাধীনতা বিরোধিদের দলের সদস্য করা যাবে না। সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, ভূমিদস্যু, মাদক ব্যবসায়ী এবং মাদকাসক্তরাও আওয়ামী লীগের সদস্য হতে পারবে না।

সার্কুলারের মাধ্যমে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা ইতোমধ্যে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যারা আওয়ামী লীগের পুরনো সদস্য তাদের নবায়ন এবং নতুন সদস্য নির্বাচনের ক্ষেত্রে বিতর্কিত ব্যক্তিদের পরিহার করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, জাহাঙ্গীর কবির নানক, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ।