advertisement
আপনি দেখছেন

৩০ লাখ টাকারও বেশি সরকারি রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে বিআরটিএ'র এক সরকারি কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ওই কর্মকর্তা ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে গাড়ির রেজিস্ট্রেশন করে দিয়ে সরকারের রাজস্ব ফাঁকিতে সহায়তা করেন। তিনি পাঁচ মামলার এজাহারভুক্ত আসামি।

dudok

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) ঢাকার কেরানীগঞ্জের ইকুরিয়া কার্যালয় থেকে সোমবার বিকেলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ জানায় গ্রেপ্তার হওয়া ওই কর্মকর্তার নাম আবু আশরাফ সিদ্দিকী। তিনি বিআরটিএর ইকুরিয়া কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক।

দুদকের সচিব আবু মো. মোস্তফা কামাল জানান, সোমবা্র বিকালে আশরাফকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারে নেতৃত্ব দেন দুদকের দুই উপপরিচালক মির্জা জাহিদুল আলম ও এস এম রফিকুল ইসলাম।

দূদক সূত্র জানায়, ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর কক্সবাজার বিআরটিএর ওই কর্মকর্তাসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে পাঁচটি মামলা হয়। মামলা করেন দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়। মামলার অপর ৫ জন আসামি হলেন গাড়ির (ট্রাক) মালিক হারুন অর রশিদ বাহাদুর, নুরুল ইসলাম, ফয়েজ আহমেদ, শাহাজাহান খান ও নাসিরউদ্দিন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, বিআরটিএ-কে ভুয়া তথ্য দেন আসামিরা। আসামিরা জানান তারা সোনালী ব্যাংকের কক্সবাজার কাস্টমস হাউস শাখায় গাড়ির রেজিস্ট্রেশনের জন্য ৩০ লাখ ১৪ হাজার ৩৮০ টাকা শুল্ক জমা দিয়েছেন। এ ব্যাপারে তাদের পরামর্শ বিআরটিএর সহকারী পরিচালক আবু আশরাফ সিদ্দিকি। পরে আসামিরা গাড়ির ভুয়া কাগজপত্র বিআরটিএতে জমা দেন। কাগজ পত্রের মধ্যে ছিল ব্যাংকের ঋণপত্র এলসি, শিপিং ডকুমেন্ট, বিল অব এন্ট্রি। ভুয়া কাগজপত্রে নিবন্ধনের ফলে সরকার ৩০ লাখ ১৪ হাজার ৩৮০ টাকা রাজস্ব হারায়।

 

আপনি আরো পড়তে পারেন

বিকেল পাঁচটার পর উম্মুক্ত স্থানে অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ

নতুন ‘ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার’-এর নাড়িনক্ষত্র

আসছে বিশাল অংকের নতুন বাজেট

ঘোষিত হলো আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর কমিটি

sheikh mujib 2020