advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। ভাইরাসটি যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য বিমানবন্দর, সমুদ্র বন্দরসহ সকল স্থানে বাড়তি সতর্কতা নেয়া হয়েছে। এছাড়া রাজধানীসহ দেশের প্রত্যেকটি জেলা-উপজেলায় কোয়ারেন্টাইন ও আইসোলেশন ওয়ার্ড প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

corona virus photo

ইতোমধ্যে করোনা মোকাবেলায় ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ চেয়ে অর্থ মন্ত্রণালয় বরাবর চিঠি পাঠিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। খুব শীঘ্রই এই টাকা স্বাস্থ্য বিভাগকে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন অর্থ বিভাগের উপসচিব ড. মোহাম্মদ আবু ইউসুফ।

এদিকে বিদেশ ফেরত যাত্রীদের করোনা পরীক্ষা করতে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নতুন করে পাঁচটি থার্মাল স্ক্যানার স্থাপন করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় ইতোমধ্যে ঢাকায় ৫০০ ও জেলা পর্যায়ে ১০০ বেডের আইসোলেশন ওয়ার্ড প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। এছাড়া উপজেলা পর্যায়ে ৫০ ও ২০ বেডের আইসোলেশন ওয়ার্ড প্রস্তুত রাখা আছে। প্রয়োজনে তা বৃদ্ধি করা হবে।

অন্যদিকে মাদারীপুরে করোনার উপসর্গ দেখা দেয়া বিদেশ ফেরত ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেছেন এমন ২৯ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. শফিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ইতালি থেকে আগত ওই ব্যক্তির শরীরের করোনার লক্ষণ দেখা দিলে তিনি নিজেই আইইডিসিআরকে জানান। তিনি এখন কোয়ারেন্টাইনে আছেন। দেশে আসার পর ওই প্রবাসী যাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন এমন ২৯ জনকেও কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

এছাড়া নারায়ণগঞ্জে করোনার উপসর্গ দেখা দেয়া বিদেশ ফেরত ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেছেন, এমন ৪০ জনকে নিজ বাড়িতে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলার ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল সার্জন আসাদুজ্জামান জানান, সম্প্রতি ইতালি ফেরত যে দুজন আইইডিসিআর-এর অধীনে চিকিৎসাধীন আছেন, তাদের সংস্পর্শে এসেছিলেন জেলার এই ৪০ জন বাসিন্দা। তাই অহেতুক ভয়ভীতি এড়াতে সতর্কতা হিসেবে তাদের নিজ বাড়িতে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

মানিকগঞ্জে বাড়তি সতর্কতা হিসেবে বিভিন্ন দেশ থেকে আগত ৫৯ জন প্রবাসীকে নিজ নিজ বাড়িতে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল আমিন আখন্দ বলেন, এই ৫৯ জনের মধ্যে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলায় চার নারীসহ ৩২ জন, সাটুরিয়া উপজেলায় ১৮ জন, শিবালয়ে ছয়জন, দৌলতপুরে দুইজন এবং সিংগাইর উপজেলায় একজন। সম্প্রতি তারা ইতালি, চীন, দক্ষিণ আফ্রিকা, সৌদি আরব, সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন দেশ থেকে দেশে ফিরেছেন।

তাদের শরীরে করোনার কোনো উপসর্গ লক্ষ্য করা যায়নি। তারপরও বাড়তি সতর্কতা হিসেবে নিজ বাড়িতেই ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি তাদের ও পরিবারের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে স্বাস্থ্য বিভাগ, যোগ করেন এই কর্মকর্তা।