advertisement
আপনি দেখছেন

পানামা পেপার্সে নাম থাকার জেরে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল চিলির প্রেসিডেন্টের পদত্যাগের পর ‘ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ’ (টিআইবি) কতটা স্বচ্ছ -তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

sajeeb wazed joy

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে নিজের পেজে এ ব্যাপারে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন জয়।

২৪লাইভ নিউজপেপারের পাঠকদের জন্য সজীব ওয়াজেদ জয়ের স্ট্যাটাসের অংশ বিশেষ তুলে দেয়া হলো।

“ … একটা বিষয় আমি উত্থাপন করতে চাই, সেটা হলো সম্প্রতি চিলির ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের প্রধানের পদত্যাগ। বিদেশে সম্পদ লুকানোর বিষয়ে তার নাম এসেছিলো পানামা পেপার্সে। এখন আমার প্রশ্ন হচ্ছে, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল কতটা স্বচ্ছ এবং অন্যদের দুর্নীতিগ্রস্ত বলার অধিকার তাদের কীভাবে থাকে? সর্বোপরি, আমাদের দেশে সব সংসদ সদস্য এবং মন্ত্রীদের সম্পদের বিবরণ দিতে হয়। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ নিজেদেরটা দেয় না, তথাপিও তারা তাদের দুর্নীতির পর্যবেক্ষক বলে দাবী করে। আমরা কী করে জানি যে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের সদস্যরা দুর্নীতিগ্রস্ত নয়, তাদের কোন লুকানো সম্পদ নেই এবং তারা তাদের সব ট্যাক্স পরিশোধ করেছে?

তাদের যদি সাহস থাকে, তবে অন্যের দুর্নীতির বিষয়ে মন্তব্য করার আগে তাদের স্বেচ্ছায় নিজেদের সম্পদের বিবরণ প্রকাশ করা উচিৎ। আমার সন্দেহ আছে যে তাদের সেই সাহস রয়েছে কিনা, তাই মনে হয় একটি আইন থাকা প্রয়োজন। যে কেউ দুর্নীতির বিষয়ে পর্যবেক্ষক হতে চাইবে তাদের নিজেদের সম্পদের বিবরণ দুর্নীতি দমন কমিশনে দাখিল করে নিতে হবে, ঠিক যেমন এমপিদের করতে হয়।

যদি আমার সাথে একমত হোন, অনুগ্রহ করে এই পোস্টটি লাইক এবং শেয়ার করুন।ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ তাদের সম্পদের বিবরণ প্রকাশ করে এটা প্রমাণ করুক যে তারা তাদের চিলি শাখার মতই দুর্নীতিগ্রস্ত নয়।”

 

আপনি আরও পড়তে পারেন

আজকালের মধ্যেই আসতে পারে বৃষ্টি

বর্ষবরণে নারী নিপীড়নের ঘটনায় ফোন করুন এই নম্বরে

বৈশাখে নাগরিকদের মিষ্টি খাওয়াবে পুলিশ

হাইকোর্টের রায়: আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে সিম নিবন্ধন বৈধ

sheikh mujib 2020