advertisement
আপনি দেখছেন

দেশে মহামারি করোনাভাইরাসের তাণ্ডবের মধ্যেই আরেক ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়ে গেল ঘূর্ণিঝড় আম্পান। বুধবার সন্ধ্যায় আঘাত হানা ওই ঘূর্ণিঝড়ে ওই রাতেই মারা যান অন্তত ১০ জন। একদিনের ব্যবধানে নতুন করে আরো যোগ হয়েছেন ১৪ জন। আহতদের অনেকেই মৃত্যুবরণ করায় প্রাণহানির সংখ্যা গিয়ে ঠেকল ২৪-এ। এখনও মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন আরো কয়েকজন।

amphan damageআম্পানের প্রভাবে তলিয়ে গেছে অনেক বাড়িঘর

সবচেয়ে বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে যশোরে। গাছ চাপা পড়ে, দেয়াল ধ্বসে, ঘর ভেঙে সেখানে ১২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। যদিও যশোরের জেলা প্রশাসন থেকে ৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। এছাড়া পিরোজপুরে মৃত্যুবরণ করেছেন ৩ জন- মঠবাড়িয়ায় ২ জন ও ইন্দুরকানীতে ১ জন।

চুয়াডাঙ্গায় প্রাণ গেছে ২ জনের। উভয়েই জীবননগর উপজেলার, বৈদ্যনাথপুরের কিশোর শামীম মারা গেছে গাছ চাপায় এবং পোস্ট অফিসপাড়ার বৃদ্ধা মোমেনা খাতুন (৮৫) মারা গেছেন ঘরের দেয়াল চাপায়।

এছাড়া চাঁদপুরে ১, ঝিনাইদহ সদর উপজেলায় ১, সিরাজগঞ্জে ১, রাজশাহীতে ১, সাতক্ষীরায় ১, পটুয়াখালীতে ২ ও বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন জেলায় ৫ জন মারা গেছেন।