advertisement
আপনি দেখছেন

রাজধানী ঢাকার অন্যতম আবাসিক এলাকা জাপান গার্ডেন সিটি। মোহাম্মদপুরে অবস্থিত এই আবাসিক এলাকায় এবার কোরবানির পশু ঢুকতে দেওয়া হবে না, এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। করোনাভাইরাসের কারণে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলা হলেও এটা মানতে পারছেন না অনেকেই। কারণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে কোরবানি করলে তাতে কোনো সমস্যা নেই, এমনটা বলে আসছেন বিশেষজ্ঞরা। উল্লেখ্য, জাপান গার্ডেন সিটিতে প্রতি বছর প্রায় ৮০০ পশু কোরবানি দেওয়া হয়।

japan city

আবাসিক এলাকাটির এমন সিদ্ধান্তে অধিকাংশই কোরবানি দিতে পারবেন না বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ সিটি করপোরেশন যেখানে-সেখানে কোরবানি পশু জবাই করা নিষিদ্ধ করেছে। তাছাড়া জাপান গার্ডেনের সামনের রাস্তাটি অত্যন্ত জনবহুল হওয়ায় সেখানেও পশু জবাই কোনোভাবেই সম্ভব নয়। এ অবস্থায় কোরবানি দিতে ইচ্ছুক আবাসিক এলাকাটির পরিবারগুলো এ নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়ছেন।

জাপান গার্ডেন সিটি ফ্ল্যাট মালিক কল্যাণ সমিতির প্যাডে প্রকাশ করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, কোরবানির আয়োজন করতে গিয়ে কসাইসহ নানা ধরনের ৫ হাজারেরও বেশি মানুষ জড়ো হয় এই আবাসিক এলাকায়। করোনাভাইরাসের এই প্রাদুর্ভাবের সময়ে এতে করে ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে। কারণ আগত অপরিচিত মানুষের মধ্যে কে কোভিড আর কে নন কোভিড তা বুঝার কোনো উপায় থাকবে না।

bd update 8may

তবে আবাসিক এলাকাটির এমন সিদ্ধান্তে অবাক হয়েছেন ধর্মপ্রাণ মানুষ। তারা বলছেন, কোরবানি স্রেফ পশু জবাই নয়, মুসলমানদের জন্য এটা একটা ইবাদত। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যেখানে সারাদেশেই কোরবানি হবে, সেখানে জাপান গার্ডেন সিটির আলাদা সিদ্ধান্ত নেওয়ার কতটুকু যৌক্তিকতা আছে? তাছাড়া তারা কোনো বিকল্প পথও বাতলে দেয়নি। প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে কি এই আবাসিক এলাকার অন্তত ১ হাজার পরিবার এবার কোরবানি দেবে না?

sheikh mujib 2020