advertisement
আপনি দেখছেন

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত রাজধানী ঢাকা, পার্শ্ববর্তী নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর এবং বন্দরনগরী চট্টগ্রাম। এসব জেলায় আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে কোরবানির পশুর হাট না বসানোর পরামর্শ দিয়েছে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ বিষয়ে গঠিত জাতীয় কমিটি।

cow 1

শুক্রবার কোভিড-১৯ জাতীয় পরামর্শক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ এবং সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. মীরজা‌দি সে‌ব্রিনা ফ্লোরা স্বাস্থ্য মহাপরিচালকের কাছে তাদের এ সুপারিশ পেশ করেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

করোনার ব্যাপক সংক্রমণ রোধে এ পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে জেলাগুলোতে পশুর হাট না বসিয়ে ডিজিটাল পদ্ধতিতে কোরবানির পশু কেনাবেচার ব্যবস্থার জন্য সংশ্লিষ্টদের উৎসাহ দিতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি ঈদের ছুটিতে এই জেলাগুলো থেকে অন্য স্থানে যাতায়াত না করার জন্যও পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

তবে দেশের অন্য জেলাগুলোতে কোভিড-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধ নীতিমালা অনুযায়ী কোরবানির পশুর হাট বসানো যেতে পারে। সে জন্য কোরবানির পশুর হাট স্থাপন ও পশু জবাইয়ের ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি সুপারিশ করা হয়েছে।

cow bazar

সেগুলো হলো-

=) শহরের অভ্যন্তরে কোরবানির পশুর হাট না বসানো।

=) খোলা ময়দানে পশুর হাট বসাতে হবে। যেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং সংক্রমণ প্রতিরোধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ সম্ভব।

=) পঞ্চাশোর্ধ্ব ব্যক্তি এবং অসুস্থ ব্যক্তির পশুর হাটে যাওয়া থেকে বিরত থাকা।

=) পশুর হাটে প্রবেশ ও বাইরে পৃথক রাস্তা রাখা।

=) পশুর হাটে আগমনকারী সকল ব্যক্তির মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক।

=) কোরবানির পশু বাড়িতে জবাই না করে সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত স্থানে করা।

=) এবং অনলাইনে অর্ডারের মাধ্যমে বাড়ির বাইরে কোরবানি দেয়া সম্ভব হলে তা করার জন্য উৎসাহিত করা।

sheikh mujib 2020