advertisement
আপনি দেখছেন

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৩১ জুলাই অথবা ১ আগস্ট বাংলাদেশসহ পুরো বিশ্বে ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি থাকায় এবারও উন্মুক্ত স্থানে বড় পরিসরে ঈদের জামাত আদায় করা যাবে না। সবাইকে ঈদুল ফিতরের ন্যায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদের ভেতর সীমিত পরিসরে নামাজ আদায় করতে হবে।

dinajpur eid 2019ফাইল ছবি

মঙ্গলবার এ প্রসঙ্গে জরুরি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়। উপসচিব মো. সাখাওয়াৎ হোসেন স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবজনিত প্রেক্ষাপটে উন্মুক্ত স্থানে বড় পরিসরে ঈদের জামাত পরিহার করে জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ কর্তৃক জারিকৃত নির্দেশাবলি অনুসরণপূর্বক শর্তসাপেক্ষে মসজিদে আদায় করতে হবে।

শর্তগুলো হলো-

=) ঈদুল আজহার জামাত ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে নিকটস্থ মসজিদে আদায় করতে হবে। একই মসজিদে একাধিক জামাত আদায় করা যাবে।

=) জামাতের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। সম্পূর্ণ মসজিদ জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। মুসল্লিদের নিজ দায়িত্বে বাসা থেকে জায়নামাজ নিয়ে আসতে হবে।

=) নিজ বাসা থেকে অজু করে মসজিদে আসতে হবে। অজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।

=) মসজিদে অজুর স্থানে সাবান বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে।

=) মসজিদের গেটে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

=) মুসল্লিকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না।

=) কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে। এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে।

=) শিশু, বৃদ্ধ, অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি ঈদের নামাজের জামাতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না।

=) স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে।

=) মসজিদে জামাত শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো পরিহার করতে হবে।

=) করোনা থেকে রক্ষা পেতে পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ শেষে মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া করার জন্য খতিব ও ইমামদের অনুরোধ করা হলো।

=) খতিব, ইমাম, মসজিদ পরিচালনা কমিটি ও স্থানীয় প্রশাসনকে বিষয়গুলো বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

=) কোরবানির ক্ষেত্রে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা যথাযথভাবে মেনে চলতে হবে।

sheikh mujib 2020