advertisement
আপনি দেখছেন

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার আসামি ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ সাত আসামিকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। শুক্রবার রাত ৯টার দিকে গণমাধ্যমকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন।

oc prodip newওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও পরিদর্শক লিয়াকত আলী

তিনি বলেন, ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও পরিদর্শক লিয়াকত আলীকে সরাসরি পুলিশ সদর দপ্তর থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া এসআই নন্দলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন, কনস্টেবল আবদুল্লাহ আল মামুন ও এএসআই লিটন মিয়াকে পুলিশ সুপার নিজে বরখাস্ত করেছেন।

এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় টেকনাফের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত কর্তৃক কক্সবাজার জেলা পুলিশের ৭ সদস্যের জামিন আবেদন নাকচ করে তাদের জেলে পাঠানোর বিষয়টি গত ৬ আগস্ট সন্ধ্যায় পুলিশ অবহিত হয়।

mejor sinha rashed1বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান

এরপরই প্রদীপ কুমার দাশ ও লিয়াকত আলী ইন্সপেক্টর হওয়ায় তাদের পুলিশ সদর দপ্তর থেকে বরখাস্ত করা হয়। বাকি ৫ আসামি এসআই নন্দলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসেন, কনস্টেবল আবদুল্লাহ আল মামুন ও এএসআই লিটন মিয়াকে নিজ ক্ষমতাবলে তাৎক্ষণিক চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছেন পুলিশ সুপার।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামি কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। তখন র‌্যাবের পক্ষ থেকে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে প্রথমে ওসি প্রদীপসহ তিন জনকে সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত এবং বাকি চার আসামিকে দুদিন করে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন। পরে র‌্যাবের আরেক আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত সাত আসামিকেই সাত দিন করে রিমান্ড দেন।

sheikh mujib 2020