advertisement
আপনি দেখছেন

দেশে নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত ও মৃত্যুহার কমে আসায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিং বন্ধ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বিশেষায়িত হাসপাতাল নির্মাণ সংক্রান্ত এক সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

health minister zahid malek 2স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক- ফাইল ছবি

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুহার অনেক কমে এসেছে। তাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিং বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে করোনার নিয়মিত আপডেট সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হচ্ছে। তিনি জানান, করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য আগামী মাসে কয়েকটি সরকারি হাসপাতাল চিহ্নিত করা হবে। এর বাইরে বাকিগুলোকে অন্যান্য রোগীদের চিকিৎসার জন্য নির্ধারণ করা হবে।

প্রতিটি বিভাগে ক্যান্সার, কিডনি ও হৃদরোগে আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট বিশেষায়িত হাসপাতাল নির্মাণ করা হবে জানিয়ে জাহিদ মালেক আরো বলেন, প্রতি বছর দেশে গড়ে দেড় লাখ মানুষ মরণব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। প্রাণ হারান প্রায় এক লাখ মানুষ। অথচ এসব রোগীদের চিকিৎসার জন্য দেশে শুধু একটি ৫০০ বেডের বিশেষায়িত ক্যান্সার ইনস্টিটিউট আছে। এছাড়া আর কোনো হাসপাতাল নেই।

coronaকরোনাভাইরাস- প্রতীকী ছবি

তিনি আরো জানান, আমাদের দেশে কিডনিজনিত সমস্যায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও অনেক। প্রতি বছর প্রায় ৫০ হাজার মানুষ এতে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। এসব রোগীদের কিছুদিন পর পর ডায়ালিসিস করতে হয়। এছাড়া হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও অনেক বেশি।

তাই এসব রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রতি বিভাগে বিশেষায়িত হাসপাতাল নির্মাণে সম্প্রতি একটি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় আড়াই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্পের অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসব বিশেষায়িত হাসপাতালে ক্যান্সার, কিডনি ও হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

sheikh mujib 2020