advertisement
আপনি দেখছেন

মরণঘাতী করোনাভাইরাসের মোকাবেলায় একটি ভ্যাকসিন (টিকা) আবিষ্কারের চেষ্টা করছে দেশীয় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যালসের সহযোগী প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড। গত জুলাই মাসেই এ ব্যাপারে ঘোষণা দেয় প্রতিষ্ঠানটি। অ্যানিমাল ট্রায়ালের প্রথম ধাপের পর বিষয়টি জানানো হলেও এখন চলছে দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়াল। তবে দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়ালও শেষ পর্যায়ে এবং চলতি মাসেই ভ্যাকসিনটির হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য আবেদন করা হবে বলে জানা গেছে।

dr asif mahmud globe biotechড. আসিফ মাহমুদ

গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ডিপার্টমেন্টের প্রধান ড. আসিফ মাহমুদ রোববার সন্ধ্যায় একটি গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ভ্যাকসিনের অ্যানিমাল ট্রায়ালের তথ্য আমরা পেতে শুরু করেছি। আমরা আশা করছি, চলতি মাসের মাঝামাঝি গিয়ে আমরা সংবাদ সম্মেলন করে এ ব্যাপারে জানাতে পারব। এর পরই আমরা ভ্যাকসিনের হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য আবেদন করব, আর সেটা চলতি মাসেই করা হবে।

globe vaccineগ্লোব বায়োটেকের লোগো

‘অ্যানিমাল ট্রায়ালের দ্বিতীয় ধাপের যে তথ্য আমরা পাচ্ছি, তা বেশ আশা জাগানিয়া। যেমনটা আমরা প্রত্যাশা করেছি, ফলাফলও ঠিক তেমনটাই পাচ্ছি। আগামী সপ্তাহের মধ্যেই আমাদের সব তথ্য চলে আসবে। আর পুরো তথ্য হাতে আসলে আমরা সংবাদ সম্মেলন করে আমাদের প্রাপ্ত তথ্য উপস্থাপন করবো। এ ব্যাপারে আমরা পাবলিকেশনের প্রস্তুতিও নিচ্ছি। তবে তথ্যগুলো ফাইলিং করতে কয়েকদিন সময় লাগবে। এর পরই আমরা থার্ড পার্টির (সিআরও) মাধ্যমে হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য বিএমআরসির কাছে আবেদন করব,’ বলেন আসিফ মাহমুদ।

প্রসঙ্গত, এর আগে গেল জুলাই মাসে এক সংবাদ সম্মেলনে কোম্পানিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, বড় ধরনের কোনো প্রতিবন্ধকতার শিকার না হলে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন বাজারে আনতে পারবেন তারা।

এদিকে, বিষয়টি সম্পর্কে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের সিইও ড. নাজনীন সুলতানা বলেন, কোনো টিকা বা ড্রাগ মানবদেহে প্রয়োগ করতে হলে তা কতটা নিরাপদ সেটা আগে দেখতে হয়। আমরা করোনাভাইরাসের টিকা আনার চেষ্টা করছি, আর কয়েকদিনের মধ্যেই তার অ্যানিমাল ট্রায়াল শেষ হবে। এর পর আমরা প্রাপ্ত সমস্ত ডাটা বা তথ্য কম্পাইল করে বিএমআরসিতে জমা দেব এবং ট্রায়ালের পরবর্তী ধাপ তথা হিউম্যান ট্রায়াল শুরু করার জন্য আবেদন করব।

sheikh mujib 2020