advertisement
আপনি দেখছেন

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেয়াসহ এ সঙ্কটের সমাধানে দ্বিপাক্ষিক ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সম্ভাব্য সব বিষয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকার অভিমত ব্যক্ত করেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান।

dr a k momen with erdoanবাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন ও তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান

আজ বুধবার আঙ্কারায় প্রেসিডেন্সিয়াল কমপ্লেক্সে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের সঙ্গে এক দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে তিনি এ আশ্বান দেন। এ সময় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট।

বৈঠকে রোহিঙ্গা সংকট ও দুই দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। বিশেষ করে, বাণিজ্যিক পণ্য আদান-প্রদানের বিষয়ে নতুন উদ্যোগ গ্রহণ, আরো বেশি প্রতিনিধি দল পাঠানো এবং বিভিন্ন প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন এই দুই নেতা।

এ সময় শিক্ষা, সংস্কৃতি ও সামরিক খাতে চলমান সহযোগিতাকে শক্তিশালী অভিহিত করে তারা বলেন, উভয় দেশের মধ্যে বিদ্যমান বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরো জোরদার করতে হবে।

erdoan president turkeyতুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান

আগামী বছরের গোড়ার দিকে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ডি-৮ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দেবেন জানিয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট ও সংস্থাটির বর্তমান চেয়ারম্যান এরদোয়ান বলেন, মহামারির অবসান হলে ঢাকায় নবনির্মিত তুর্কি দূতাবাস ভবন উদ্বোধনের সময়ও বাংলাদেশ সফরে আসতে পারেন।

নতুন সদস্যরাষ্ট্র যুক্ত করে ডি-৮ সম্প্রসারণের ব্যাপারে জোর দিয়ে এবং ঢাকা ও আঙ্কারার মধ্যে বাণিজ্য সম্পর্ক বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। পাশাপাশি বর্তমানে বিদ্যমান শুল্কবাধা এড়িয়ে নতুন পণ্য, বস্ত্র, ওষুধ ও অন্যান্য খাতের বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাব দেন।

এ ছাড়া উভয় দেশে বাণিজ্য মেলায় অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশাবাদ ব্যক্ত করেন এরদোয়ান। একই সঙ্গে বাংলাদেশে তুরস্কের আর্থিক সহযোগিতায় একটি আধুনিক হাসপাতাল নির্মাণ করার ইচ্ছার কথা জানিয়ে প্রয়োজনীয় জমি বরাদ্দের জন্য ড. মোমেনকে প্রস্তাব দেন।

sheikh mujib 2020