advertisement
আপনি দেখছেন

একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধে মহান বিজয়কে কেন্দ্র করে পহেলা ডিসেম্বরকে ‘মুক্তিযোদ্ধা দিবস’ পালনের প্রস্তাব করেছে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। আজ রোববার সংসদ ভবনে কমিটির এক বৈঠকে এ প্রস্তাব করা হয়।

freedom fighters dayসাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধ

বিষয়টি নিশ্চিত করে কমিটির সভাপতি শাজাহান খান বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা না থাকলেও যাতে তাদের স্মরণ করা হয়, সে জন্য মুক্তিযোদ্ধা দিবস ঘোষণার প্রস্তাব করা হয়েছে। বিষয়টি মন্ত্রিসভায় তোলার জন্য মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে। মন্ত্রিসভা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

সরকারিভাবে না হলেও পহেলা ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, গেজেট করে সরকার এটিকে দিবস হিসেবে ঘোষণা করলে পালনের বাধ্যবাধকতা থাকে।

এর আগে ২০০৪ সালের ১২ জানুয়ারি পল্টনে এক মহাসমাবেশ সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম পহেলা ডিসেম্বরকে ‘মুক্তিযোদ্ধা দিবস’ ঘোষণা করে। সেই থেকে সারা দেশে এ দিবস পালন করে আসছে সংগঠনটি। এ ছাড়া রাষ্ট্রীয়ভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের নামের আগে ‘জাতীয় বীর’ উপাধি যুক্ত করারও দাবি জানানো হয়।

freedom fighters day 1মুক্তিযোদ্ধা দিবস পালন করছে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম

আজকের বৈঠকে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, চলতি অর্থবছর থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের মাসিক সম্মানি ৮ হাজার টাকা বাড়িয়ে ২০ হাজার টাকা করতে অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

শাজাহান খানের সভাপতিত্বে সংসদীয় কমিটির এ বৈঠকে সদস্য মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও কাজী ফিরোজ রশীদ অংশ নেন।

sheikh mujib 2020