advertisement
আপনি দেখছেন

বিভিন্ন রোগে গুরুতর অসুস্থ ব্যক্তি এবং ১৮ বছরের কম বয়সীদের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে আসন্ন টিকাদান কর্মসূচির বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে উচ্চপর্যায়ের কমিটির বৈঠক শেষে তিনি এ তথ্য জানান।

health minister jahid malek 15 aprilস্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট (এসআইআই) উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের প্রথম চালান আগামী ২৫ বা ২৬ জানুয়ারি দেশে আসবে বলে বেক্সিমকোর পক্ষ থেকে সরকারকে জানানো হয়েছে।

সেই অনুযায়ী সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, প্রতিটি জেলায় সাত লাখ ও উপজেলায় দুই লাখেরও বেশি ভ্যাকসিনের ডোজ সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে সরকার সারাদেশে প্রায় ৪২ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। যেন তারা ফ্রেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহ থেকে ভ্যাকসিন দিতে পারে।

এ ছাড়া সাড়ে ৭ হাজার টিম গঠন করা হয়েছে। দেশে ভ্যাকসিন আসার পর পরই যেন সেগুলো সরবরাহ করা যায়, সে জন্য পরিবহনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে, যোগ করেন মন্ত্রী।

corona vaccin bangladesh

তিনি বলেন, বিভিন্ন রোগে গুরুতর অসুস্থ ব্যক্তি এবং ১৮ বছরের কম বয়সীদের কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন দেয়া হবে না। আগামী ২৬ জানুয়ারি থেকে টিকা প্রত্যাশীদের নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হবে। আর যেসব বিদেশি বাংলাদেশে অবস্থান করছেন, তাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ভ্যাকসিন দেয়া হবে।

এ সময় বেসরকারি খাতকে ভ্যাকসিন ব্যবহার করতে দেয়ার জন্য সরকার নীতিমালা ঠিক করছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, এক্ষেত্রে সরকার একটি মূল্য নির্ধারণ করে দেবে। পাশাপাশি কোথায় ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে হবে, সেটাও জানিয়ে দেবে।

sheikh mujib 2020