advertisement
আপনি দেখছেন

মাত্র ২ লাখ টাকায় দুটি বিদেশি জাতের গরু কিনে ২০১৩ সালে খামার গড়ে তুলেছিলেন শাহ নেওয়াজ। সেটি ৮ বছরে ৭০টি গরু নিয়ে প্রায় ৩ কোটি টাকার ‘নেচার ফ্রেশ ডেইরি ফার্ম’-এ পরিণত হয়েছে। সফল এই মানুষটির বাড়ি দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের বড়গলি গ্রামে।

cattle farmer shah newazগরুর খামারি শাহ নেওয়াজ

নিজস্ব বাড়িতে ৩ ভাই মিলে শখের বসে গড়ে তোলা গরুর খামার ভাগ্য খুলে দিয়েছে শাহ নেওয়াজদের। জেলার বৃহৎ দুগ্ধজাত খামারটি এখন অনেক যুবকের অনুপ্রেরণা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আধুনিক প্রযুক্তিতে তিনটি শেডে ৭০টি গরুর লালন-পালন করছে ১০ জন শ্রমিক। এর মধ্যে প্রথম শেডে ১৬টি বকনা বাছুর, দ্বিতীয় শেডে গাভিন ৩টি গাভী এবং দুগ্ধজাত গাভীগুলো রয়েছ তৃতীয় শেডে।

cattle farmer shah newaz 1গরুর খামারি শাহ নেওয়াজ

খামার থেকে প্রতিদিন প্রায় ২০০ লিটার দুধ আসে, যা সংগ্রহ করা হয় তুরস্ক থেকে আনা ‘মিলকিং’ যন্ত্রে। গরুর খাবারের জন্য ৯ বিঘা জমিতে নেপিয়ার ও সুইট লেমন ঘাস চাষ করা হয়েছে, তাও যন্ত্রের সাহায্যে কেটে খাওয়ানো হয়।

এ বিষয়ে ঘোড়াঘাট ডেইরি এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও খামারটির মালিক শাহ নেওয়াজ জানান, প্রায় ২ কোটি টাকার গরু নিয়ে পুরো প্রকল্পটি প্রায় ৩ কোটি টাকার। খামারে এক শ গরু পালনের স্বপ্ন ছিল, যা খুব অল্প দিনে সফলের দিকে যাচ্ছে।

dinajpur map 1দিনাজপুরের মানচিত্র

তবে গরুর খুরা রোগের টিকা পেতে ভোগান্তির কথা জানিয়ে তিনি বলেন, বিভিন্ন কোম্পানির টিকা থাকলেও তা ঢাকা ছাড়া পাওয়া যায় না। দুধ সংগ্রহের সিলিম সেন্টার নেই উপজেলায়। এর ফলে এখানকার ১১৪ জন খামারি ভোগান্তিতে রয়েছেন।

খামারের বিষয়ে ঘোড়াঘাট প্রাণী সম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা (এলডিডিপি) ডা. রাকিবা খাতুন বলেন, তাদের পক্ষ থেকে সকল খামারিকে বিনামূল্যে টিকাসহ প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়া হয় নিয়মিত। এ ক্ষেত্রে শাহ নেওয়াজের সাফল্য পুরো জেলায় আলোড়ন সৃষ্টি করেছে, অনেককে উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখাচ্ছে।