advertisement
আপনি দেখছেন

দেশে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে টিকা গ্রহণের বয়সসীমা আরো কমালো সরকার। সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যাদের বয়স ১৮, তারাও কোভিড-১৯ টিকা নিতে পারবেন। খুব শিগগিরই এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে। আগের সিদ্ধান্ত অনুসারে টিকা গ্রহণের বয়স ছিল ৩৫ বছর।

bangladesh cv vacc programটিকা গ্রহণের বয়সসীমা ১৮, ফাইল ছবি

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মুহাম্মাদ খুরশীদ আলম। তিনি জানিয়েছেন, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে টিকা গ্রহণের সর্বনিম্ন বয়সসীমা ১৮ বছর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দ্রুত সময়ের মধ্যেই এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হবে।

রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শন শেষে আজ শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক। অধ্যাপক খুরশীদ আলম বলেন, আজ (শুক্রবার) সকালে এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের সঙ্গে আলোচনা করে আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যেই এই সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন শুরু করব।

khurshid alam health departmentস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মুহাম্মাদ খুরশীদ আলম

প্রসঙ্গত, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর গত ১৯ জুলাই করোনার টিকা নেওয়ার বয়স ৩০ বছর নির্ধারণ করে। তার আগে গত ৫ জুলাই বয়সসীমা নির্ধারণ করা হয় ৩৫ বছর। বাংলাদেশে যখন টিকার জন্য নিবন্ধন শুরু হয় তখন ৫৫ বছর বয়সীদের টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু নিবন্ধনের ক্ষেত্রে তেমনটা সাড়া না পাওয়ায় বয়সসীমা কমানোর সিদ্ধান্ত হয়। সেই অনুযায়ী আরো বেশি সংখ্যক মানুষকে করোনার টিকা কর্মসূচির আওতায় আনতে বয়সসীমা কমিয়ে ৫৫ থেকে ৪৪ বছর করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

পরবর্তীতে টিকা গ্রহণের বয়সসীমা ফের কমিয়ে ৪০ বছর করা হয়। এর পর তৃতীয় দফায় গত ৫ জুলাই টিকা গ্রহীতাদের বয়স কমিয়ে ৩৫ বছর করা হয়। আর গত ১৯ জুলাই চতুর্থ দফায় তা কমিয়ে ৩০ বছর করার ঘোষণা দেওয়া হয়। সর্বশেষ টিকা গ্রহণের বয়সসীমা ১৮ করার সিদ্ধান্ত হলো।