advertisement
আপনি দেখছেন

দীর্ঘদিন ঝুলে থাকার পর অবশেষে নতুন কোনো কিছু যোগ করা ছাড়াই শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। তবে আইনে থাকা দুটি বিষয় খসড়া থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে শিক্ষার্থীদের ড্রেস কোড এবং অপরটি নোট-গাইড বই। এক্ষেত্রে কৌশলগতভাবে কোচিং সেন্টার বাদ দেয়া হয়নি।

psc jsc exam hall

গতকাল রোববার শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সভাপতিত্বে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক ভার্চুয়াল সভায় খসড়াটি চূড়ান্ত করা হয়। এটি পাশ করানোর জন্য শিগগিরই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হবে।

এ বিষয়ে আজ সোমবার মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, সভায় অপরিবর্তত শিক্ষা আইনের এ খসড়াটি চূড়ান্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এটি সংশোধনসহ যত দ্রুত সম্ভব চূড়ান্ত করা হবে। তারপর তা মন্ত্রী মহোদয়ের মাধ্যমে গণমাধ্যমকে বিষয়টি জানানো হবে।

মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের বলেন, খসড়ায় তেমন কোনো পরিবর্তন করা হয়নি। শুধু দুটি বিষয় বাদ দেয়া হয়েছে। এগুলো আইনে না থাকলেও চলে। পরবর্তীতে পরিপত্রের মাধ্যমে নির্দেশনা দেয়া যাবে। বিষয় দুটি হলো- শিক্ষার্থীদের ড্রেস কোড এবং নোট-গাইড নিষিদ্ধ রাখা।

dhaka cocing

জানা গেছে, আইনের খসড়ায় কৌশলগতভাবে কোচিং সেন্টার রাখা হয়েছে। শুধু ওই ধারা থেকে নোট-গাইড বই থাকবে না বলা হয়েছে। তবে শব্দগত পরিবর্তন করা হবে কি না, সে সম্পর্কে কোনো কিছু বলা হয়নি।

কোচিং সেন্টার পরিচালনা সংক্রান্ত ধারায় বলা হয়েছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চলাকালীন দিনের বেলা কোচিং সেন্টার পরিচালনা করা যাবে না। তবে সন্ধ্যার পর পরিচালনা করা যাবে। পাশাপাশি কোনো শিক্ষক তার নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে কোচিং সেন্টারে পড়াতে পারবেন না। নয়তো ওই কোচিং সেন্টারের ট্রেড লাইসেন্স বাতিল করে দেয়া হবে।

sheikh mujib 2020