advertisement
আপনি পড়ছেন

করোনাকালীন বিধিনিষেধের মধ্যেই সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, শাবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলছে। ভিসি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদেরর পদত্যাগের দাবিতে সপ্তাহখানেক ধরে চলছে এই কর্মসূচি। সবশেষ আজ রোববার ভিসির বাসভবন ঘেরাও করে রেখেছেন শিক্ষার্থীরা।

surround residence of shabi vice chancellorশাবি উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এদিন বিকালে ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা ঘোষণা দেন যে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ছাড়া ভেতরে কাউকে প্রবেশ করতে বা বের হতে দেওয়া হবে না। পরিস্থিতির কারণে এ কর্মসূচি দিতে হয়েছে, বাধ্য করা হলে আরো কঠোর হবে চলমান কর্মসূচি।

সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা হুঁশিয়ার করে বলেছেন, ভিসির বাসভবন ঘেরাও করেও দাবি আদায় না হলে সেখানকার জরুরি পরিষেবা বন্ধ করে দেয়া হবে। তবে এখন শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান নেওয়া হবে বলে জানান শিক্ষার্থী নাফিজা আনজুম।

sylhet rallyকাফন পরে শাবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, ফাইল ছবি

এদিকে, শিক্ষার্থীদের আমরণ অনশন কর্মসূচির ১০০ ঘণ্টা পেরিয়ে গেছে আজ রোববার সন্ধ্যায়। এরইমধ্যে অনশনরত ১৬ জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। ১০০ ঘণ্টা পূর্ণ হলেও দাবি আদায় না হওয়ায় ক্যাম্পাসে প্রতিবাদী মিছিলের ঘোষণা দেয়া হয়।

জানা গেছে, শাবির শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সূত্রপাত হয় গত ১৩ জানুয়ারি। ওই দিন রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রাধ্যক্ষ জাফরিন আহমেদের বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ তুলে তার পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন হলের কয়েক শ ছাত্রী।

১৫ জানুয়ারি সন্ধ্যায় এ আন্দোলনে হামলা চালায় ছাত্রলীগ। পরের দিন বিকেলে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে ভিসিকে অবরুদ্ধ করেন। তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক লাঠিপেটা করা হয় এবং তাদের লক্ষ্য করে শটগানের গুলি ও সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়ে পুলিশ।

এরপর ওই দিন দিবাগত রাতে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ও শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ। তবে শিক্ষার্থীরা তা উপেক্ষা করে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রাখেন। তারা এখন আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করছেন। এরই মধ্যে ২৩ জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে জানা গেছে।