advertisement
আপনি দেখছেন

নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণের মধ্যেই ভারতের দিল্লিতে তাবলিগ জামাতের সম্মেলনে (মারকাজ) অংশ নেয়া ৮২ বাংলাদেশি জামিন পেয়েছেন। আজ শুক্রবার মুচলেকা নিয়ে তাদের জামিন দেয় দেশটির আদালত। প্রত্যেককে ১০ হাজার রুপির (বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১১ হাজার ৩০০ টাকা) ব্যক্তিগত মুচলেকা দিতে হয়েছে।

tablig jamat in dilliভারতের রাজধানী দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজে তাবলিগ জামাতে অংশ নেয় বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের মুসল্লিরা

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দুর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যে দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজে অনুষ্ঠিত তাবলিগ জামাতে অংশ নেয়া ৩১টি দেশের ৩৭১ জন নাগরিকের বিরুদ্ধে ভিসা সংক্রান্ত নীতিমালা অমান্য কারার অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়। তারা টুরিস্ট ভিসায় দেশটিতে গিয়েছিলেন। যার মধ্যে বাংলাদেশি নাগরিক ছিলেন ৮২ জন।

বাংলাদেশিদের পক্ষে নিযুক্ত আইনজীবী অ্যাডভোকেট মন্দাকিনী সিং ও আশিমা মণ্ডল জানান, মামলার চার্জশিট জমা দেওয়ার পর আজ আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। আসামিরা প্রত্যেকে আত্মপক্ষ সমর্থন ও নিজেদের দোষ স্বীকার করে আদালতে লঘুদণ্ডের আবেদন করেন। পরে আদালত প্রত্যেকের কাছ থেকে ১০ হাজার রুপির ব্যক্তিগত মুচলেকা নিয়ে তাদের জামিন দেন।

coronaকরোনাভাইরাস- প্রতীকী ছবি

ভারতের আইন অনুযায়ী, কোনো অপরাধ যদি দেশটির আর্থ-সামজিক অবস্থাকে প্রভাবিত না করে এবং অপরাধীর বয়স যদি ১৪ বছরের নিচে বা নারী না হয়, তাহলে দোষ স্বীকার করার প্রেক্ষিতে আসামিকে সর্বোচ্চ ১৪ বছরের কারাদণ্ড দেওয়ার বিধান রয়েছে।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস সংক্রমণের মধ্যে গত ১৩ থেকে ১৫ মার্চ দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজে তাবলিগ জামাতে অংশ নেয় বাংলাদেশসহ ৩১টি দেশের নাগরিক। তারা টুরিস্ট ভিসায় গিয়ে ধর্মপ্রচারে অংশ নিয়েছিলেন। পরে এপ্রিলের শুরুতে তামিলনাড়ুর ১৫টি এলাকা থেকে ৮২ জন বাংলাদেশি নাগরিককে গ্রেপ্তার করা হয়। যাদের মধ্যে ১২ জন নারীও ছিলেন।

এ বিষয়ে তামিলনাড়ুর রাজনৈতিক নেতা এম এইচ জাওয়াহিরউল্লা বলেন, বিদেশ থেকে এসে রোগ ছড়ানোর অভিযোগে গণস্বাস্থ্য আইন অনুযায়ী এদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে পুলিশ। ভারতের ভিসা নীতি ভঙ্গ করার অভিযোগও আনা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।