advertisement
আপনি দেখছেন

চলমান করোনা মহামারির মধ্যে এক দেশ আরেক দেশের নাগরিকদের প্রবেশের ক্ষেত্রে নানা বিধি-নিষেধ আরোপ করছে। বাংলাদেশে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সেই বিধি-নিষেধের তালিকায় পড়ছে। এর আগে ইতালি ও কুয়েত বাংলাদেশি ও অন্যান্য দেশের নাগরিকদের তাদের দেশে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। এবার জাপানও সেই তালিকায় যুক্ত হলো। তবে শুধু যুক্ত হওয়া নয়, তারা বাংলাদেশসহ চার দেশের নাগরিকদের প্রবেশের প্রক্রিয়া আরো কঠিন করেছে।

bangladesh japan flagবাংলাদেশ ও জাপানের পতাকা (ডানে)

জানা গেছে, বাংলাদেশ ও আরো তিনটি দেশের নাগরিকরা যদি জাপানে পুনঃপ্রবেশ করতে চায়, তাহলে করোনার নেগেটিভ সার্টিফিকেট তো দেখাতে হবেই, সেইসঙ্গে সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাসের বিশেষ অনুমতিপত্রও দিতে হবে। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নতুন এই নিয়ম জারি করেছে। অন্য তিনটি দেশ হলো- পেরু, পাকিস্তান ও ফিলিপাইনস।

স্থানীয় গণমাধ্যম জাপান টাইমস সোমবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। আগামী শুক্রবার থেকে নতুন এই বিধি-নিষেধ কার্যকর হবে বলে জানানো হয়েছে।

japan restricted four countriesবাংলাদেশসহ চার দেশের নাগরিকদের ঢুকতে কঠোর বিধি-নিষেধ জাপানের

যদিও আগের ঘোষণা অনুযায়ী নতুন নির্দেশনা আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু জাপান সরকার মনে করছে, এই সব দেশে করোনার সংক্রমণের হার বাড়ছে। সেইসঙ্গে দেশগুলো থেকে জাপানে ফেরা যাত্রীদের মধ্যে বিমানবন্দরে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেশি পাওয়া যাচ্ছে। ফলে নির্দেশনাটি আগেভাগেই কার্যকর করা হচ্ছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে জাপান টাইমস জানিয়েছে, ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারির আগে উল্লিখিত দেশগুলোর যেসব নাগরিক জাপানের বাইরে গেছেন, তারা যদি এখন দেশটিতে ঢুকতে চান সেক্ষেত্রে বিমানে উঠার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করা পিসিআর টেস্টের ফলাফল দেখাতে হবে। সেইসঙ্গে সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাস কিংবা কনস্যুলার অফিস থেকে অনুমতিপত্র নিতে হবে।

প্রসঙ্গত, এর আগে ইতালি থেকে ফিরে আসা বাংলাদেশিদের অনেকেই আবার সেদেশে গেছেন। কিন্তু দেশটিতে যাওয়ার পর তাদের করোনায় আক্রান্ত হওয়া এবং বিমানবন্দরেই বেশ কিছু বাংলাদেশির দেহে কোভিড-১৯ শনাক্ত হওয়ায় বাংলাদেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ। এ ছাড়া কুয়েত শনিবার ৩১টি দেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

sheikh mujib 2020