advertisement
আপনি দেখছেন

লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনায় আরো এক বাংলাদেশি প্রবাসীর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এ নিয়ে সেখানে মোট তিনজন প্রবাসী বাংলাদেশি প্রাণ হারিয়েছেন। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৭৮ জন।

beirut explosion 5লেবাননের রাজধানী বৈরুতে গতকাল সন্ধ্যায় ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে

আজ বুধবার বিকেল ৪টার সময় এ তথ্য জানান লেবাননে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের হেড অফ চ্যান্সারি আব্দুল্লাহ আল মামুন।

তিনি জানান, বিস্ফোরণের ঘটনায় তিনজন বাংলাদেশি প্রবাসীর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। এদের মধ্যে দুইজনের পরিচয় শনাক্ত করা গেছে। তাদের একজনের নাম মেহেদী হাসান, তার বাড়ি বাহ্মণবাড়িয়ায়। অপরজনের নাম মিজানুর রহমান। তার বাড়ি মাদারীপুরে। তারা দুজনেই দেশটিতে পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। নিহত আরেকজনের পরিচয় শনাক্তের কাজ চলছে।

তিনি আরো জানান, তিনজন নিহত ছাড়াও কমপক্ষে ৭৮ জন বাংলাদেশি প্রবাসী আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে ৮ থেকে ১০ জনের মতো বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। বাকিরা চিকিৎসা শেষে ইতোমধ্যে হাসপাতাল ছেড়ে গেছেন।

beirut explosion 7লেবাননের রাজধানী বৈরুতে গতকাল সন্ধ্যায় ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে

আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, বিস্ফোরণটি যে জায়গায় হয়েছে তার আশপাশে অনুমানিক ৩-৪ হাজার বাংলাদেশি বসবাস করেন। তাই আর কেউ হতাহত হয়েছে কি না সে বিষয়ে দূতাবাস খোঁজখবর নিচ্ছে।

এর আগে তিনি জানিয়েছিলেন, এ বিস্ফোরণের ঘটনায় দেশটিতে অবস্থান করা বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ২১ জন সদস্য আহত হয়েছেন। পাশাপাশি বৈরুত বন্দরে অবস্থান করা বাংলাদেশ নৌবাহিনীর জাহাজ বিএনএস বিজয় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৬ জনকে বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর। এছাড়া বাকি ১৫ জন সামরিক সদস্যকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

লেবাননে ২৫ বছর ধরে কাজ করা বাবু সাহা নামের এক বাংলাদেশি শ্রমিক জানান, নিহত মেহেদী হাসানের বাড়ি বাহ্মণবাড়িয়ার বাদেশ্বরা গ্রামে। তিনি বৈরুতের আশরাফি এলাকার একটি সুপার মার্কেটে কাজ করতেন। বর্তমানে তার মরদেহ মাউন্ট লেবাননে রয়েছে। আর নিহত মিজানের বাড়ি মাদারীপুরে। তিনি ঘটনাস্থলের এক কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থিত একটি রেস্তোরাঁয় কাজ করতেন।

এদিকে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, বিস্ফোরণের ঘটনায় মোট মৃতের সংখ্যা ইতোমধ্যে ১০০ জন ছাড়িয়ে গেছে। আহত হয়েছেন ৪ হাজারের বেশি। ধ্বংসস্তূপের নিচে এখনও অনেকে আটকে থাকায় হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা রেডক্রসের লেবানিজ শাখার প্রধান জর্জ কিত্তানেহ।

স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ জোড়া বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণের তীব্রতা এতই বেশি ছিলো যে সেখানে ৩ দশমিক ৫ মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত হয়। এর তীব্রতা টের পাওয়া যায় বৈরুত শহর থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দূরে ভূমধ্যসাগরের অপর প্রান্তে অবস্থিত সাইপ্রাসেও। ক্ষতিগ্রস্ত হয় ঘটনাস্থল থেকে ১০ কিলোমিটার দূরের স্থাপনাও। বিস্ফোরণের পর শহরের প্রাণকেন্দ্র থেকে ধোঁয়ার কুণ্ডলী উঠতে দেখা যায়।