advertisement
আপনি দেখছেন

অবৈধ পথে ইতালিসহ ইউরোপের বিভিন্ন উন্নত দেশে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে অসংখ্য বাংলাদেশিকে বসনিয়ায় নিয়ে যায় দালালরা। বর্তমানে সেখানকারই জঙ্গলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন উন্নত জীবনের আশায় অজানার উদ্দেশ্যে পাড়ি দেওয়া বাংলাদেশিরা। এমন করুণ অবস্থার চিত্র জানার পর তাদের দেশে ফিরিয়ে আনতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম।

bd people in bosnia forrestবসনিয়ার জঙ্গলে বাংলাদেশিদের মানবেতর জীবন

এ বিষয়ে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, আইওএমের বাংলাদেশ অফিস থেকে মঙ্গলবার প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের ফিরিয়ে আনার অনুরোধ করা হয়েছে। তবে মন্ত্রণালয় থেকে এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, সরকার চাইলেই তো তাদের ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। তাছাড়া সেখানে যারা আটকে আছেন, তারা কী আদৌ ফিরতে চান? এখানে অনেক ব্যাপার আছে। তাই আমরা কেউই নিশ্চিত না। তবুও বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। এরপরই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

bd people in bosnia forrest1বসনিয়ার জঙ্গলে বাংলাদেশিদের মানবেতর জীবন

জানা গেছে, বসনিয়া, সার্বিয়া, স্লোভেনিয়া, ক্রোয়েশিয়ার মতো দেশ পাড়ি দিয়ে অবৈধভাবে ইতালিতে ঢোকার চেষ্টা করছেন অসংখ্য অভিবাসী। তারা ক্রোয়েশিয়া থেকে অ্যাড্রিয়াটিক সাগর পাড়ি দিয়ে ইতালি যায়। দালাল চক্রের মাধ্যমে নতুন এই রুটে ইতালি যাওয়া বাংলাদেশির সংখ্যা কয়েকগুন বেড়ে গেছে। শুধু গত ৯ মাসেই ২ হাজার ৫৫৩ জন বাংলাদেশি বসনিয়ায় পৌঁছেছেন এবং গত তিন বছরে এই সংখ্যাটা প্রায় ১৩ হাজার।

ব্র্যাকের অভিবাসন বিভাগের প্রধান শরিফুল হাসান বলেন, ফিরিয়ে আনার একটা প্রক্রিয়া আছে এবং অসংখ্য অবৈধ অভিবাসীকে সরকার আগেও এনেছে। কিন্তু কত মানুষকে এভাবে আনা যায়। তবুও সরকারের কাছে অনুরোধ করবো মানবিক দিক বিবেচনায় নিয়ে যেন বসনিয়ার জঙ্গলে আটকে থাকা বাংলাদেশিদের যেন ফিরিয়ে আনা হয়।

bd people in bosnia forrest2বসনিয়ার জঙ্গলে বাংলাদেশিদের মানবেতর জীবন

এখানে আরো একটা ব্যাপার আছে। সরকার ফিরিয়ে আনতে চায় ঠিকই, কিন্তু তাদের অনেকেই আসতে চায় না। যখন ফেরানোর উদ্যোগ নেয়া হবে, তখন দেখা যাবে অনেকেই পালাচ্ছে। তাছাড়া তারা জেনে-বুঝেই এই পথ পাড়ি দিচ্ছেন। ইতোমধ্যে ৫-১৮ লাখ টাকা পর্যন্ত খরচও করে ফেলেছেন। অবৈধ অভিবাসন নিরুৎসাহিত করতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি প্রতি পরিবারেও সচেতনতা দরকার। দালালদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে, যোগ করেন তিনি।

sheikh mujib 2020