advertisement
আপনি পড়ছেন

বাংলাদেশ থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই যাওয়ার ক্ষেত্রে যাত্রা শুরুর ৬ ঘণ্টা আগে বাংলাদেশের বিমানবন্দরগুলোতে কোভিড-১৯ টেস্টের বাধ্যবাধকতা ছিল। করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের সংক্রমণ কমতে থাকায় সেই বাধ্যবাধকতা প্রত্যাহার করা হয়েছে। তবে আমিরাত কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশিদের ভ্রমণের ক্ষেত্রে নতুন করে কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করেছে।

dubai airport uaeসংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর

বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ বা বেবিচক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। বাংলাদেশের বিমান সংস্থাটিকে পাঠানো এক চিঠিতে দুবাই কর্তৃপক্ষ এসব বিধিনিষেধের কথা জানিয়েছে বলে জানা গেছে।

এতে বলা হয়েছে, দুবাই রওনা হওয়ার আগেই বাংলাদেশি যাত্রীদের সেখানে হোটেল বুকিং করতে হবে। একই সঙ্গে করোনার আরটি পিসিআর টেস্ট করে নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিতে হবে যাত্রা শুরুর ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে। এ ছাড়া মোট ৮ কপি সার্টিফিকেট বিমানবন্দরে উপস্থিত হওয়ার সময় সঙ্গে রাখতে হবে।

নির্দেশনায় আরো বলা হয়েছে, দুবাই বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর বাংলাদেশি যাত্রীদের আরেকবার বিনামূল্যে কোভিড টেস্ট করতে হবে। তবে সেই টেস্টের রিপোর্ট জানানো হবে নমুনা নেওয়ার পরদিন বিকেলে, সেটা হতে পারে হোটেলে অথবা মোবাইল নম্বরে। তার মানে হলো, এই রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট যাত্রীকে দুবাইয়ের হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

প্রাপ্ত রিপোর্ট ওই ব্যক্তি কোভিড-১৯ নেগেটিভ হলে হোটেল থেকে বের হতে পারবেন তিনি। তবে যদি কোনো যাত্রীর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ হয়, তাহলে তাকে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে এবং মানতে হবে সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকারের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিধিনিষেধ।

জানা গতকাল মঙ্গলবার, ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে ইতোমধ্যে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করেছে আমিরাত কর্তৃপক্ষ। তারা আরো জানিয়েছে, যেসব বৈধ গৃহকর্মী বাংলাদেশ থেকে দুবাই যাবেন তাদের সঙ্গে ফ্লাইটে থাকতে হবে তাদের স্পন্সর বা স্পন্সরের মনোনীত ব্যক্তিকে।

আমিরাত কর্তৃপক্ষ তাদের নতুন ভ্রমণ বিধিনিষেধে আরো জানিয়েছে, যাত্রা শুরুর আগে প্রত্যেক যাত্রীকে তাদের স্মার্ট ফোনে ‘COVID 19 DXB’ অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে এবং হেলথ ডিক্ল্যারেশন ফরম পূরণ করতে হবে। এ ছাড়া যাত্রার সময় পূরণ করা ফরমের প্রিন্ট কপি এবং যাত্রীদের হেলথ ইনস্যুরেন্সও সঙ্গে নিতে হবে। তবে আরটি পিসিআর টেস্ট ছাড়াই দুবাই প্রবেশ করতে পারবেন ১০ বছরের নিচের শিশু এবং শারীরিকভাবে অক্ষম ব্যক্তিরা।