advertisement
আপনি দেখছেন

শনিবার, ২৫ এপ্রিল বাংলাদেশে রাজধানী ঢাকাসহ বেশ কয়েকটি স্থানে এবং উত্তর ভারতে বড় ধরণের ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা (ইউএসজিএস)-এর তথ্য অনুযায়ী ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিলো নেপালের রাজধানী কাঠমাণ্ডু থেকে ৮১ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে ১৫ কিলোমিটার গভীরে।

ইতিহাসে ঠিক এই দিনে আরও বেশ কয়েকটি বড় ধরণের ভূমিকম্পের ঘটনা রয়েছে। চলুন দেখে নেই সেই ঘটনাগুলো।

৭.২ মাত্রা, ক্যালিফোর্নিয়া

১৯৯২ সালের এই দিনে আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ার হামবোল্ট কাউন্টিতে ৭ দশমিক ২ মাত্রার এক ভয়ঙ্কর ভূমিকম্প সংঘটিত হয়। এটি আমেরিকার ইতিহাসে সবচেয়ে সবচেয়ে ভূমিকম্পগুলোর একটি। ভূমিকম্পে ৯৮ জন মানুষ আহত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছিলো। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়, ওইদিনের ভূমিকম্পে প্রায় ৬৬ মিলিয়ন ডলারের ক্ষয়ক্ষতি হয়। এই ভূমিকম্পের কারণে ১ দশমিক ১ মিটার উচ্চতার সুনামিও সৃষ্টি হয়েছিলো।

৭.১ মাত্রা, গুয়েরিও

১৯৮৯ সালে মেক্সিকো সিটির গুয়েরিও শহরে ৭.১ মাত্রার যে ভূমিকম্পটি হয় সেটি ছিলো এই দিনে। ভূমিকম্পের কারণে অন্তত ৩ জন মানুষ মারা যায়। আর মেক্সিকো সিটিতে অল্প কিছু ক্ষয়ক্ষতি হয়। রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পটির মাত্রা বেশি হলেও ক্ষয়ক্ষতির দিক থেকে এটি খুব বেশি একটা ধংসাত্মক ছিলো না।

 ৫.০ মাত্রা, উজবেকিস্তান

১৯৬৬ সালের এই ভূমিকম্পে মাত্র ১০ জন মারা গেলেও প্রায় ১,০০০ জন মানুষ আহত হয়। আর গৃহহীন হয়ে পড়ে প্রায় ১ লক্ষ মানুষ। উজবেকিস্তানে এটাই ছিলো সবচেয়ে ভয়ংকর ভূমিকম্প। এই ভূমিকম্পে ২৮,০০০ বিল্ডিং, ২০০ হাসপাতাল, ১৮০ স্কুল-কলেজ পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়। উজবেকিস্তানের জন্য এই ক্ষতি ছিলো অপূরণীয়।

 ৭.১ মাত্রা, তুরস্ক

১৯৫৭ সালের এই ভূমিকম্পটি তুরস্কে বিরাট এক ধংসাত্মক পরিস্থিতি ডেকে আনে। ১৫ জন মানুষ ভূমিকম্পের শিকার হয়ে মারা যায়। আহত হয় হাজার হাজার মানুষ এবং সম্পদ নষ্ট হয় প্রচুর। এই ভূমিকম্পে শুধু তুরস্কে নয়, বরং সাইপ্রাস, মিশর, ইসরাইল এবং লেবাননেও আঘাত হানে।

 

আপনি আরও পড়তে পারেন

জমজের ভ্রূণ মাথায় নিয়ে ২৬ বছর!

গতির নতুন রেকর্ড

কেমন ছিলো মঙ্গল গ্রহ?