advertisement
আপনি দেখছেন

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। থমকে গেছে জনজীবন। দেশে দেশে চলছে লকডাউন। বেশিরভাগ দেশেই বন্ধ রয়েছে সীমান্ত। সংক্রমণের ভয়ে ঘর থেকে বের হচ্ছেন না কেউ। কিন্তু এরপরও দুটি ভিন্ন দেশে থাকা এক বৃদ্ধ যুগলের ভালোবাসায় বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি প্রাণঘাতী এ ভাইরাস। প্রতিদিনই তারা দেখা করছেন একে অপরের সঙ্গে।

old lover castern ingoকরোনাভাইরাস পরিস্থিতিতেও সীমান্ত অভেন্টঅফটে প্রতিদিন দেখা করে প্রেম করছেন জার্মানির কার্স্টেন ট্যুশেন হানসেন (৮৯) ও ডেনমার্কের ইঙ্গা রাসমুসেন (৮৫)

দুই বছর আগে জার্মানির কার্স্টেন ট্যুশেন হানসেনের (৮৯) সঙ্গে পরিচয় হয় ডেনমার্কের ইঙ্গা রাসমুসেনের (৮৫)। পরিচয় থেকে শুরু হয় এই বৃদ্ধ যুগলের প্রেম। গত বছরের ১৩ মার্চ থেকে চলতি বছরের ১৪ মার্চ পর্যন্ত দুইজন প্রতিদিন দেখা করেছেন। একে অপরের সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন। জড়িয়ে ধরেছেন প্রেমের টানে।

কিন্তু বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস হঠাৎ বাধা হয়ে দাঁড়ায় তাদের প্রেমে। গত ১৪ মার্চ জার্মানির সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করে দেয় ডেনমার্ক। দুই দিন পর একই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে জার্মানিও। ফলে ওই বৃদ্ধ যুগলের একে অপরের সঙ্গে দেখা না হওয়ার শঙ্কা তৈরি হয়।

কিন্তু এরপরও দমিয়ে রাখা যায়নি তাদের। প্রেম মানে না কোনো বাধা- সেই কথারই আরেকবার প্রমাণ দিলেন ওই বৃদ্ধ যুগল। করোনাভাইরাস আতঙ্কের মধ্যেও প্রতিদিন জার্মানি ও ডেনমার্কের সীমান্ত সংলগ্ন অভেন্টঅফটে দেখা করে প্রেম চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

old lover castern ingo 2করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতেও সীমান্ত অভেন্টঅফটে প্রতিদিন দেখা করে প্রেম করছেন জার্মানির কার্স্টেন ট্যুশেন হানসেন (৮৯) ও ডেনমার্কের ইঙ্গা রাসমুসেন (৮৫)

কার্স্টেন প্রতিদিন ই-বাইক চালিয়ে জার্মানির নর্ডফ্রিজল্যান্ডের জ্যুডারফ্যুগুম শহর থেকে পৌঁছে যান অভেন্টঅফটে। আর ডেনমার্কের গালেহুস শহর থেকে গাড়ি চালিয়ে আসেন ইঙ্গা। এরপর দুইজন দুই দেশের সীমান্তে সামনাসামনি চেয়ারে বসে গল্প করেন, খাবার খান। কফি বা মদের গ্লাস তুলে ধরে বলেন 'চিয়ার্স টু লাভ'!

তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ভয়ে এখন আর জড়িয়ে ধরতে পারেন না তারা। এমনকি হাতও মেলান না। তারপরও চুটিয়ে চলছে তাদের প্রেম! তাই বলাই যায়, বয়স বা প্রাণঘাতী ভাইরাস কিছু্ই বাধা হতে পারেনি তাদের ভালোবাসায়!

sheikh mujib 2020