advertisement
আপনি পড়ছেন

তাসমানিয়ার উপকূলের অদূরে অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীরা একটি বিরল মাছ খুঁজে পেয়েছেন, যেটি ‘হাতের’ সাহায্যে ঘুরে বেড়ায়। পিংক হ্যান্ডফিশ নামের মাছটি বিলুপ্ত হয়ে গেছে মনে করা হলেও সম্প্রতি তাসমানিয়ার উপকূলে একটি মেরিন পার্কে দেখা মিলেছে।

tasman fracture marine parkপিংক হ্যান্ডফিশ

বিলুপ্ত হয়ে যাবে এমন আশঙ্কা থেকে বিজ্ঞানীরা মাছটিকে বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় যোগ করেছিলেন। এর আগে মাছটি শেষবার দেখা গিয়েছিল ১৯৯৯ সালে। এর ২২ বছর পর সম্প্রতি মাছটির দেখা মিলেছে। সম্প্রতি চারবার মাছটির দেখা পাওয়া গেছে।

সাগরতলের ক্যামেরায় ধারণ হওয়া নতুন একটি ভিডিওতে দেখা যায় মাছটি গভীর সাগরের খোলা জায়গায় ঘোরাফেরা করছে। বিজ্ঞানীরা আগে ধারণা করেছিলেন, মাছটি অগভীর পানিতে বসবাস করে। কিন্তু সবশেষ দেখায় জানা যাচ্ছে, সাগর সমতলের ৩৯০ ফুট গভীরেও এরা বাস করে।

tasman fracture marine parkতাসমান ফ্র্যাকচার মেরিন পার্ক

ইউনিভার্সিটি অব তাসমানিয়ার সমুদ্র জীববিজ্ঞানী নেভিল ব্যারেট এ ব্যাপারে বলেন, বিষয়টি খুবই উত্তেজনাকর। আগে মনে করা হচ্ছিল, মাছটি বিলুপ্ত হয়ে গেছে। তবে এখন জানা যাচ্ছে, মাছটি অনেক বেশি জায়গা নিয়ে ঘোরাফেরা করে। তাই পিংক হ্যান্ডফিশ নামের মাছটির ভবিষ্যৎ নিয়ে আশঙ্কা কিছুটা কমেছে।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে ব্যারেটের অধীন গবেষক দলটি তাসমান ফ্র্যাকচার মেরিন পার্কে একটি ক্যামেরা বসায়। তাদের উদ্দেশ্য ছিল, পানির নিচে থাকা কোরাল, গলদা চিংড়ি এবং অন্যান্য প্রজাতির মাছের ছবি তোলা এবং জরিপ চালানো। গত অক্টোবর মাসে ক্যামেরাটির ভিডিও ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখা যায়, বড় বড় মাছের দলের মধ্যে একটি অদ্ভুত প্রাণী সমুদ্রের তলদেশে মাটির ওপর দিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। মাছটির রয়েছে দুটি হাত!

পাখনার বদলে এই পিংক হ্যান্ডফিশের রয়েছে বড় মাপের হাত, যা ব্যবহার করে তারা সমুদ্রের তলায় মাটির ওপর ঘোরাফেরা করে। তবে তারা সাঁতারও জানে। তাসমানিয়ার উপকূলে ১৪ প্রজাতির হ্যান্ডফিশ থাকলেও গোলাপি বর্ণের হ্যান্ডফিশ খুবই বিরল।