advertisement
আপনি দেখছেন

এক সপ্তাহের মধ্যে অনিবন্ধিত ও অননুমোদিত বেশ কিছু নিউজ পোর্টাল বন্ধে গত ১৪ সেপ্টেম্বর নির্দেশনা দিয়েছিল হাইকোর্ট। সে অনুযায়ী, আজ মঙ্গলবার পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু করে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন, বিটিআরসি। তবে তালিকা না পাওয়ায় প্রক্রিয়াটি স্থগিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

btrc logoবিটিআরসির লোগো

জানা গেছে, নিজস্ব তালিকা ধরে বিটিআরসি পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু করার পর বিডিনিউজসহ কিছু সাইটে বিকেল থেকে ঢোকা যাচ্ছিল না। বিডিনিউজ বলছে, নিবন্ধিত হওয়ার পর পৌনে ৫টা থেকে প্রায় দেড় ঘণ্টা তাদের সাইট বন্ধ রেখেছে সংস্থাটি।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে তালিকা চাইলেও সময় মতো পাওয়া যায়নি উল্লেখ করে টেলিযোগাযোগমন্ত্রী বলেন, যেসব সাইট বন্ধ করা হয়েছিল, সেগুলো আবার খুলে দেয়া হয়েছে। আগামী তিনদিনের মধ্যে তালিকা দেয়ার কথা বলেছে তথ্য মন্ত্রণালয়, সেটি পেলে ফের বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু করা হবে।

ministry of information and broadcastingতথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়, ফাইল ছবি

নির্দেশনা অনুযায়ী, আজকের মধ্যে ব্যবস্থা নেয়া না হলে আদালত অবমাননা হতো জানিয়ে তিনি বলেন, সেজন্য নিজেদের তৈরি তালিকা ধরে বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু করেছিল বিটিআরসি। এর আগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর নিউজ পোর্টাল বন্ধে বিটিআরসির চেয়ারম্যান ও প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যানকে নির্দেশনা দেয়া হয়। বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া এবং বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

নির্দেশনার পাশাপাশি হাইকোর্ট মন্তব্য করেছে, সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে নৈতিক নীতিমালা প্রনয়ণ করা জরুরি হয়ে উঠেছে। এটি করতে হবে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলকে। দেশে হাজার হাজার অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল চালু থাকার পরও বিটিআরসি কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এসব পোর্টালের রেজিস্ট্রেশন করা জরুরি।

এ ছাড়া ওইদিন সরকারের পক্ষ থেকে ১০টি দৈনিক পত্রিকার ডিক্লারেশন বাতিল করা হয়। সেগুলো হলো- ঢাকা প্রকাশ, জাতির কণ্ঠ, গণ আওয়াজ, দৈনিক জনসেবা, কিষাণ, এই দেশ এই দিন, পূর্ব আলো, সময়ের পাতা, রিপোর্টার এবং ইংরেজি দৈনিক দি ফাইনান্সিয়াল ডেইলি।