advertisement
আপনি পড়ছেন

তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েন বলেছেন, মার্কিন হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির সফরের প্রতিশোধ নিতে নানা ব্যবস্থা গ্রহণ করছে চীন। তাইওয়ানকে ঘিরে থাকা চীনা সামরিক মহড়া দ্বীপের মূল বন্দর এবং শহুরে অঞ্চলকে হুমকির মুখে ফেলেছে। কিন্তু চীনের এসব হুমকিতে আমরা পিছু হটব না। খবর টিআরটি ওয়ার্ল্ড।

taiwan president tsai ing wenতাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েন

সাই ইং আরও বলেন, চীন ইচ্ছাকৃতভাবে তাইওয়ানকে উচ্চতর সামরিক হুমকির মুখোমুখি ফেলছে। কিন্তু এতে তাইওয়ান পিছপা হবে না। আমরা গণতন্ত্রের জন্য প্রতিরক্ষার লাইন ধরে থাকব। তাইপেইতে পেলোসির সাথে একটি অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনিয়র কর্মকর্তার সফরের জন্য চীন ক্ষুব্ধ হওয়ায় তাইওয়ানে বালি রপ্তানি নিষিদ্ধ করেছে এবং কিছু আমদানিও স্থগিত করেছে। চীনের এসব কার্যক্রম আমরা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি এবং প্রস্তুতিও জোরদার করছি। যথাসময়ে যথাযথভাবে আমরা প্রতিক্রিয়া জানাব।

china taiwan invade inner 1চীন ও তাইওয়ানের মানচিত্র

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সান লি ফ্যাং এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, চীনের মহড়া কিছু এলাকায় তাইওয়ানের আঞ্চলিক জলসীমায় প্রবেশ করেছে। আন্তর্জাতিক ব্যবস্থাকে চ্যালেঞ্জ করার জন্য এটি একটি অযৌক্তিক পদক্ষেপ।

ওই কর্মকর্তার অভিযোগ, চীনা সামরিক মহড়া তাইওয়ানের আকাশ ও সমুদ্র একপ্রকার অবরোধ করে ফেলেছে। তবে আমরা দৃঢ়ভাবে নিরাপত্তা রক্ষা করতে প্রস্তুত। আঞ্চলিক সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করে এমন যে কোনো পদক্ষেপকে প্রতিহত করব। যুদ্ধ না করার নীতি অনুসরণ করে নিরাপত্তা বাড়িয়ে তুলব।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সেনাবাহিনী অবশ্যই সতর্ক অবস্থায় থাকবে এবং জাতীয় নিরাপত্তা রক্ষা করবে। জনসাধারণকে আশ্বস্ত করা হয়েছে এবং সামরিক বাহিনীকে সমর্থন করার জন্য বলা হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বক্তব্য, চীন হুঁশিয়ারি দিয়েছে, সমুদ্রে মহড়া চলাকালীন সংশ্লিষ্ট এলাকায় যেন তাইওয়ানের বিমান প্রবেশ না করে। এই নির্দেশ একটি উসকানি, যা আন্তর্জাতিক শৃঙ্খলাকে চ্যালেঞ্জ করে। তবে উত্তেজনা বৃদ্ধি এড়াতে তাইওয়ান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ মিত্র দেশগুলোর সাথে যোগাযোগ রাখবে।