advertisement
আপনি পড়ছেন

ক্যারিয়ারের বেশিরভাগ সময় একে অন্যের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন লিওনের মেসি ও সার্জিও রামোস। অতীতকে পেছনে ফেলে গত গ্রীষ্মে প্যারিস সেন্ট জার্মেই, পিএসজিতে এক হয়েছেন এই দুই তারকা। সেই সাথে দুজনের মধ্যে জমে থাকা বরফ গলেছে অনেকটা। স্প্যানিশ ডিফেন্ডার তো মেসিকে সতীর্থ হিসেবে পেয়ে এখন নিজেকে ধন্যই মনে করছেন।

messi and ramosসতীর্থ মেসির সাথে রামোস

সেভিয়া ছেড়ে ২০০৫ সালে রিয়াল মাদ্রিদের যোগ দেন রামোস। অল্প সময়েই লস ব্লাঙ্কোসদের নিয়মিত সদস্য বনে গেছেন ৩৬ বছর বয়সী ফুটবলার। পরবর্তীতে পালন করেছেন নেতৃত্বের গুরু দায়িত্ব। মূলত চুক্তির ইস্যুতে বনিবনা না হওয়ায় পিএসজিতে পাড়ি জমিয়েছেন রামোস। তার আগে মাদ্রিদের জার্সিতে ১৬ বছর দাপিয়ে বেড়িয়েছেন।

এদিকে বার্সেলোনা দিয়ে ২০০৪ সালে পেশাদার ক্যারিয়ার শুরু করেন মেসি। কাতালানদের জার্সিতে দুর্দান্ত পারফর্ম করে নিজেকে ইতিহাসের পাতার অংশ বানিয়েছেন আর্জেন্টিনার অধিনায়ক। লা লিগার নিয়মের বেড়াজালে আটকা পড়ে প্রিয় ক্লাব ছাড়তে হয়েছে সাতবারের ব্যালন ডি’অর জয়ীকে। তার আগে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে ম্যাচ খেলার সুবাদে অসংখ্যবার রামোসকে মোকাবেলা করেছেন।

psg logo 2পিএসজি

এল ক্লাসিকোসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় মেসি ও রামোসের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা এখনও সমর্থকদের কাছে টাটকা স্মৃতি হয়ে আছে। তাই সবার ধারণা ছিল, পিএসজিতে এক হলেও বন্ধুত্বের বন্ধনে দেখা যাবে না তাদের। কিন্তু মেসির প্রশংসা করে এবার সব ধারনা পাল্টে দিলেন রামোস।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে রামোস বলেন, ‘মেসির মতো একজন খেলোয়াড়কে সতীর্থ হিসেবে পাওয়া সত্যিই সম্মানের বিষয়। এজন্য আমি নিজেকে ধন্য মনে করি। তার প্রশংসা করার দরকার নেই। অসাধারণ পারফর্ম দিয়ে সে নিজেই প্রশংসা আদায় করে নিতে জানে। আমি আশা করবো, মেসি এভাবেই মাঠে তার কাজ করে যাবে।’