advertisement
আপনি পড়ছেন

মার্কিন ড্রোন হামলার প্রতিবাদে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেছে আফগানরা। গত রোববার যুক্তরাষ্ট্র ড্রোনের মাধ্যমে আল-কায়েদা নেতা আয়মান আল-জাওয়াহিরিকে হত্যার যে দাবি করেছে, বিক্ষোভকারীরা সেটিকে আফগানিস্তানের সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন বলে দাবি করছে। খবর তোলো নিউজ।

ayman al jawahiri al qayedaআয়মান আল জাওয়াহিরি

গতকাল শুক্রবার আফগানরা কাবুলের শারপুর এলাকায় মার্কিন ড্রোন হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেন। সে সময় তারা যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড বহন করেন এবং শ্লোগান দেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশিত ছবিতে দেখা যায়, মিছিলকারীদের হাতে ‘আমেরিকা মিথ্যুক’, ‘জো বাইডেন, মিথ্যা বলা বন্ধ করুন’ প্রভৃতি লেখা প্ল্যাকার্ড ছিল। বিক্ষোভকারীরা জানান, আফগানিস্তানের অন্যান্য প্রদেশেও এ ধরনের বিক্ষোভ হয়েছে।

বিক্ষোভকারীরা কাবুলে মার্কিন ড্রোন হামলার নিন্দা করে বলেন, এর ফলে আফগানিস্তানের সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘিত হয়েছে। এক বিক্ষোভকারী বলেন, এখনো কেন অত্যাচারী আমেরিকা আফগানিস্তানের ভূখণ্ডে তার নিপীড়ন ও হামলা বন্ধ করছে না?

বাদাখশানের আরেক প্রতিবাদকারী মুহিউদ্দিন বলেন, আমেরিকা আফগানিস্তানে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে। তাই এখন তারা এটিকে ড্রোন হামলার মাধ্যমে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে এবং বিশ্বকে দেখানোর চেষ্টা করছে, আমরা এখনো সেখানে থাকতে পারি।

কাবুলের বিক্ষোভে অংশ নেওয়া হিজবুল্লাহ নামের এক যুবক বলেন, আমরা তাদের কাছে এ ধরনের হামলা বন্ধের দাবি জানাই। একই সাথে আফগানিস্তানের জনগণের সম্পদ যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংকে থাকা আফগান রিজার্ভগুলো তাদের জনগণের কাছেই পাঠানোর দাবি জানাই।

বাদঘিসে বিক্ষোভে অংশ নেওয়া আব্দুল হামিদ বলেন, যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক আফগানিস্তানে হামলা চালানো উচিত নয়। আমেরিকাকে এ ধরনের কর্মকাণ্ড থেকে বিরত রাখতে আমরা জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানাই।

ফারাহ প্রদেশের বিক্ষোভকারী মুসা বলেন, আফগান জনগণের আর কোনো ক্ষতি না করার জন্য এবং নিরপরাধের রক্তপাত না করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহবান জানাই। তারা যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে বলেন, আমেরিকা আবারও একই ধরনের হামলা চালালে তাদেরকে কঠোর প্রতিক্রিয়ার মুখোমুখি হতে হবে।

হেলমান্দের একজন বিক্ষোভকারী গোলাম নবী যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে বলেন, আমাদের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন চালিয়ে গত ২০ বছরে কী অর্জন করেছে আমেরিকানরা? গত দিনগুলোতে তারা ব্যর্থ হয়েছিল, আগামী দিনগুলোতেও তারা ব্যর্থ হবে, ধ্বংস হবে।

গত রোববার যুক্তরাষ্ট্র দাবি করে, বিশেষ ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে তারা আফগানিস্তানের আল-কায়েদা নেতা আয়মান আল-জাওয়াহরিকে হত্যা করেছে। এর প্রেক্ষিতে কাবুল এক বিবৃতিতে জানায়, তারা জাওয়াহিরির অবস্থান সম্পর্কে অবগত নয়। আর কাবুলে মার্কিন হামলার দোহা চুক্তি লঙ্ঘিত হয়েছে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর