advertisement
আপনি পড়ছেন

চীনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা বিষয়ে ৪টি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে বাংলাদেশ। আজ রোববার (৭ আগস্ট) বাংলাদেশ সফররত চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই’র সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের বৈঠকে এই চুক্তি সই হয়।

wang yi abdul momenচুক্তি স্বাক্ষরের পর আব্দুল মোমেন ও ওয়াং ই

রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে সকাল ৭টা ৫০মিনিটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন ও ওয়াং ই বৈঠকে বসেন। ঘণ্টাখানেকের এ বৈঠকে দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

সূত্র জানায়, বৈঠকে করোনার কারণে দেশে এসে আটকে পড়েছে, চীনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠরত এমন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের বিষয়টি আলোচনায় উঠে আসে। এ সময় তাদের চীনের ক্যাম্পাসে ফিরিয়ে নেওয়ার আশ্বাস দেন চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এজন্য দ্রুতই ভিসা ইস্যু শুরু হবে বলে জানান তিনি।

বৈঠক শেষে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের জানান, দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে চারটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। এরমধ্যে পিরোজপুরে অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতুর সনদ হস্তান্তর, দুর্যোগ মোকাবিলা সহায়তায় পাঁচ বছর মেয়াদি চুক্তির নবায়ন, সাংস্কৃতিক সহযোগিতা নবায়ন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও চীনের ফার্স্ট ইনস্টিটিউট অব ওশেনোগ্রাফির মধ্যে মেরিন সায়েন্স বিষয়ক একটি চুক্তি হয়েছে।

দুই দিনের সফরে শনিবার (৬ আগস্ট) বিকেলে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এসে পৌঁছান চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই। ঢাকা সফরের শুরুতেই রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকটি ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন ওয়াং ই। এরপর আজ রোববারই ঢাকা ত্যাগ করবেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ওয়াং ই এমন সময়ে ঢাকা সফরে এলেন, যখন তাইওয়ান ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে উত্তেজনা চলছে চীনের।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর