আপনি পড়ছেন

রাজধানী ঢাকার অত্যন্ত ব্যস্ত রাস্তার ঠিক মাঝখানে দাঁড়িয়ে আছে একটা বাড়ি। শুনে চোখ কপালে উঠলেও এটাই বাস্তবতা। আগারগাঁও থেকে শিশুমেলা পর্যন্ত সৈয়দ মাহবুব মোর্শেদ সড়কে এই বাড়ির অবস্থান। সড়কটি ৬ লেনে উন্নীত করার কাজ একেবারে শেষ পর্যায়ে। কর্তৃপক্ষ বাড়িটিকে রেখেই রাস্তার কাজ শেষ করছে!

road homeসড়কের মাঝখানেই দাঁড়িয়ে আছে বাড়ি

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশে এমন ঘটনা এই প্রথম। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ওই বাড়ির মালিককে জায়গাটি ছেড়ে দেওয়ার জন্য বারবার অনুরোধ করা হয়েছে। কিন্তু রাজি না হওয়ায় এক পর্যায়ে বাধ্য হয়ে বাড়িটিকে যথাস্থানে রেখে রাস্তার কাজ এগিয়ে নেওয়া হয়েছে। দেশে তো বটেই, বিদেশেও এমন ঘটনা বিরল।

জানা যায়, ২০০৩ সালে এমন একটি ঘটনা ঘটে চীনের সাংহাইতে। সে সময় ওই সড়ক নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়। এবার বাংলাদেশেও ঘটল এমন অভিনব ঘটনা। ১৫০ ফুট প্রস্থের ছয় লেনে উন্নীত করা সৈয়দ মাহবুব মোর্শেদ সড়কের মধ্যেই ৬ শতাংশ জমির ওপর দাঁড়িয়ে আছে একতলা বাড়িটি। এর মালিক নূরজাহান বেগম।

বাড়িটি ছাড়তে অনুরোধ করে কাজ না হওয়ায় আদালতে একটি রিট দায়ের করে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। তবে সেখানে তারা বাড়িটিকে অবৈধ বলে আখ্যা দেয়। এর প্রেক্ষিতে বাড়ির মালিকও পাল্টা রিট করেন। শুনানি শেষে বাড়ির মালিককে বৈধতা দেন আদালত এবং বাড়িটির স্থিতাবস্থার ব্যাপারে নির্দেশনা জারি করেন।

১৯৬৪ সালে জমিটি কিনেছেন বলে জানান বাড়িটির মালিকের ছেলে রহমত উল্লাহ। তিনি বলেন, জমিটা আমরা বিক্রি করতে চাচ্ছি না। কারণ এর বাইরে আমাদের আর কোনো বাড়ি নেই। আদালত থেকেও এ ব্যাপারে আমরা বৈধতা পেয়েছি। অবশ্য কর্তৃপক্ষ যদি আশপাশে কাছাকাছি মানের জমি দিত, তাহলে আমরা ভেবে দেখতাম।

রহমত উল্লাহ বলেন, সিটি করপোরেশন থেকে আমাদেরকে তেমন কোনো প্রস্তাব দেওয়া হয়নি। উল্টো তারা আমাদের বাড়িকে অবৈধ প্রমাণ করতে চেয়েছে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর