আপনি পড়ছেন

কারার ওই লৌহকপাট, ভেঙে ফেল কররে লোপাট- কবি নজরুলের এই গান শোনার সাথে সাথে হয়তো অনেকেরই মনে হয় এমন কিছু করার। কিন্তু লাল দালান জিনিসটাই এত ভীতিকর যে, অধিকাংশ মানুষ সযত্নে এড়িয়ে চলেন এর চৌহদ্দি। তবে তাতে কিন্তু জেল বা লাল দালান নিয়ে মানুষের কৌতুহল শেষ হয়ে যায়নি। খবর ইন্ডিয়া টাইমস।

jail tourismজেল ট্যুরিজম শুরু করছে উত্তরাখণ্ড সরকার

কারাবন্দিরা কীভাবে থাকে, কী খায়, খাবার কোথা থেকে আসে, কয়েদির ওই পোশাক পরার অনুভূতিই বা কেমন- ইত্যাদি নানা প্রশ্নের উত্তর জানতে অনেকেরই আগ্রহ থাকে। সেসব কৌতুহল মেটাতে উদ্যোগ নিয়েছে ভারতের উত্তরাখণ্ড সরকার। সেখানকার হলদোয়ানি জেলে তারা শুরু করছে জেল ট্যুরিজম। ৫০০ টাকার বিনিময়ে পুরো একদিনের জেলজীবনের স্বাদ নিতে পারবেন যে কেউ।

জেলের মধ্যে কড়া অনুশাসনে একজন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির দিন যেভাবে কাটে, সেইভাবেই থাকতে হবে আগ্রহীদের। সকালে জেলে ঢোকার সময়েই জেলের লকারে রেখে যেতে হবে পোশাকসহ নিজের সঙ্গে থাকা যাবতীয় জিনিসপত্র। এমনকি স্বাভাবিক সময়ের মতো সঙ্গে রাখা যাবে না ফোনও। তার জন্য জেল থেকেই সরবরাহ করা হবে কয়েদির পোশাক, থালাবাসন, কম্বলসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। বন্দীদের যেমন ছোট্ট একটি কুঠুরী থাকে, ২৪ ঘণ্টার জন্য তাঁকেও দেওয়া হবে তেমনি অপরিসর একটি ঘর। সেখানেই থাকবে খোলা ওয়াশরুম।

in the jailকয়েদির পূর্ণ অনুভূতি পাওয়া যাবে সেখানে

তবে ২৪ ঘণ্টা শেষ হওয়ার আগেই অস্থির হয়ে কেউ মুক্তি পেতে চাইলে তাকে গুনতে হবে জরিমানা। আরো ৫০০ টাকা দিয়ে সেখান থেকে বের হতে হবে। জেল কর্তৃপক্ষ জানান, কারাবাসের অভিজ্ঞতা আসলে ঠিক কেমন, প্রত্যক্ষভাবে সে কথা জানলে অপরাধের প্রবণতা কমতে পারে। এমন ভাবনা থেকেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ভারতে অবশ্য এমন উদ্যোগ এটাই প্রথম নয়। তেলেঙ্গানা রাজ্যের সাঙ্গারেড্ডি জেলে প্রথমবারের মতো এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল ২০১৬ সালে। পরবর্তী সময়ে দিল্লির তিহার জেল, মহারাষ্ট্রের ইয়েরওয়াডা জেল, উত্তরাখণ্ডের হলদোয়ানি জেলও এই কর্মসূচিতে শামিল হয়েছে।

উত্তরাখণ্ডের হলদোয়ানি কারাগারের ডেপুটি জেল সুপারিনটেনডেন্ট সতীশ সুখিজা জানান, হলদোয়ানি সংশোধনাগারের পরিত্যক্ত অংশগুলো পর্যটকদের থাকার জন্য তৈরি করা হচ্ছে। ১৯০৩ সালে নির্মিত জেলটির কিছু অংশ এবং ছয়টি স্টাফ কোয়ার্টার এখন অতিথিদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত করা হয়েছে।

স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, প্রাথমিকভাবে হলদোয়ানিতে এই পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। এটি সফল হলে পরবর্তীতে রাজ্যের অন্যান্য সংশোধনাগারেও তা বাস্তবায়ন করার কথা ভাবা হবে।

গুগল নিউজে আমাদের প্রকাশিত খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন...

খেলাধুলা, তথ্য-প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল, দেশ-বিদেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষণ সহ সর্বশেষ খবর